ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে স্ত্রীকে হত্যা করে, শালিকে নিয়ে উধাও হওয়ার ঘটনায় পলাতক শালি ও দুলাভাইকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টায় উপজেলার পুর্ব-রামচন্দ্রপুর তালের ডাঙ্গা গ্রাম থেকে তাদের আটক করা হয়।

পুলিশের হাতে আটক স্ত্রী হত্যার অভিযুক্ত স্বামী, উপজেলার পুর্ব রামচন্দ্রপুর তালের ডাঙ্গা গ্রামের বছির উদ্দিনের ছেলে ফরহাদ হোসেন (৪০) ও শালিকা, নবাবগঞ্জ উপজেলার চামুন্ডাই গ্রামের মন্টু মিয়ার মেয়ে সোহাগা বেগম (১৭)। আজ মঙ্গলবার আটক কৃতদের জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

মন্টু মিয়া যায়যায়দিকে বলেন, গত ১৫ বছর পূর্বে, তার বড় মেয়ে রোকসানা বেগমের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। ফুলবাড়ী উপজেলার পুর্ব রামচন্দ্রপুর তালের ডাঙ্গা গ্রামের বছির উদিনের ছেলে ফরহাদ হোসেন সাথে।

ঘর সংসার করা অবস্থায়, তাদের ৯ বছর ও ৭ বছর বয়সী দুটি কন্যা সন্তা আছে, এরই মধ্যে ফরহাদ হোসেন গত ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর মধ্য রাতে, রোকসানা বেগমকে স্বাসরুদ্ধকরে হত্যা করার খবর পেয়ে , ফুলবাড়ী থানায় অভিযোগ দায়ের করলে, পুলিশ, ১ জানুয়ারী রোকসানা বেগমের মৃত দেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তর জন্য, দিনাজপুর মর্গে প্রেরন করে। সেখান থেকেতার মৃত মেয়ের দেহ নিয়ে সতকাজ করেন।

অপরদিকে পুলিশ মামলাটির তদন্ত কাজ শুরু করে। এই ঘটনার পর থেকে ফরহাদ হোসেন গাঁ ঢাকা দেয় এবং মামলা তুলে নেয়ার জন্য তাকে না না প্রকার হুমকি দিয়ে আসছে, এরই মধ্যে চলতি মাসের ২০ জানুয়ারী তার ছোট মেয়ে সোহাগা বেগমকে নিয়ে পালিয়ে যায়, এই ঘটনায ২১ জানুয়ারী তিনি ফুলবাড়ী থানায, ফরহাদ হোসেনকে আসামী করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ মোবাইল ফোনের সুত্রধরে, গত সোমবার দিবাগত রাতে তাদের আটক করে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই এসরাকুল বলেন, পুলিশের হাতে আটক ফরহাদ হোসেন, শালির সাথে পরকিয়ার কারনে ,পথের কাটা সরাতে, ফরহাদ তার বড় স্ত্রী রোকসানা বেগমকে হত্যা কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।

ফুলবাড়ী থানার অভিসার্স ইনচার্জ (ওসি) শেখ নাসিম হাবিব বলেন, ধৃত ফরহাদের স্বীকার উত্তি অনুযায়ী, তাদের বিরুদ্ধে হত্যার চার্জ আনা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য