সঞ্জয়লীলা বানসালির ‘পদ্মাবত’ নিয়ে শুরু থেকেই চলে এসেছে নানা বিতর্ক। সেটে ভাঙচুর, পোস্টার পোড়ানো, বিক্ষোভ, এমনকি প্রাণনাশের হুমকিও পেয়েছিলেন দীপিকা-বানসালি। এবার দু’জনের গলা কেটে ফেলার হুমকি দিয়েছেন সমাজবাদী পার্টির এক নেতা।

সম্প্রতি একটি ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার সময় ঠাকুর অভিষেক সোম নামের এই নেতা বলেন, সঞ্জয়লীলা বানসালি ও দীপিকা পাড়-কোনের ‘পদ্মাবত’ যদি মুক্তি পায় তাহলে আমরা চুপ থাকবো না। তাদের গলা কেটে নেওয়া হবে। এজন্য ৫ কোটি রুপি পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণা দিচ্ছি আমরা।

এমনকি ভারত ছেড়ে যেতে হবে দীপিকাকে। তিনি আরও বলেন, আমরা সবসময়ই পদ্মাবতীকে নিয়ে ছবি তৈরির বিরোধিতা করে এসেছি, কারণ তিনি আমাদের দেবী। আমাদের পূর্বপুরুষ তার উপাসনা করেছেন, আমরা তার উপাসনা করি এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মও তার উপাসনা করবে। আপনি আমাদের আত্মমর্যাদা ও গর্বের বস্তু নিয়ে খেলতে পারেন না।

সম্প্রতি ‘পদ্মাবত’ ছবির ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত পাওয়ার জন্য ভারতের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিলেন ছবির দুই প্রযোজক অজিত আন্ধারে ও সঞ্জয়লীলা বানসালি। কেননা সেন্সরের ছাড়পত্র পাওয়ার পরও ‘পদ্মাবত’কে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিল কয়েকটি রাজ্য। এগুলো হলো- রাজস্থান, হরিয়ানা, গুজরাত, মধ্য প্রদেশ ও হিমাচল।

১৮ জানুয়ারি সেই মামলার শুনানি হয়। এ সময় সর্বোচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র জানান, এ ঘটনা সাংবিধানিক বিচারবুদ্ধির ক্ষেত্রে একটি অভিঘাত। সেন্সরের মতো সংস্থা ছাড়পত্র দেওয়ার পর রাজ্যগুলো তাতে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে পারে না। যে রাজ্যগুলো ইতোমধ্যে ছবিটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে তা কার্যকর তো হবেই না, এমনকি নতুন করে কোনও রাজ্য ‘পদ্মাবত’-কে নিষিদ্ধ করতে পারবে না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য