ইয়েমেনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকে ২০ লাখ ডলারের সৌদি তহবিল জমা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুলআজিজ। ইয়েমেনে ব্যাপক দুর্ভিক্ষের পূর্বাভাসের মধ্যেই সৌদি আরবের পক্ষ থেকে এমন ঘোষণা এলো।

শিয়াপন্থী হুথি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কথা বলে ২০১৫ সাল থেকে ইয়েমেনে বিমান হামলা অব্যাহত রেখেছে সৌদি জোট। বিমান হামলার তাণ্ডব এরইমধ্যে দুর্ভিক্ষ ও মহামারি নিয়ে এসেছে দেশটিতে। নিহত হয়েছেন হাজার হাজার মানুষ। আর গৃহহীন হয়েছেন অন্তত কয়েক লাখ মানুষ। ব্যাপক দরপতন হয়েছে ইয়েমেনি মুদ্রার। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, আন্তর্জাতিক বাজারে এক ডলারের বিপরীতে পরিশোধ করতে হচ্ছে ৫০০ ইয়েমেনি রিয়াল।

সম্প্রতি ইয়েমেনের অর্থনৈতিক দুরাবস্থা নিয়ে দেশটির সৌদি সমর্থিত প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মানসুর হাদি সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের দ্বারস্থ হন। এরপরই সৌদি বাদশাহর পক্ষ থেকে এ ঘোষণা এলো। তবে ইয়েমেনের মুদ্রার ব্যাপক দরপতনের জন্য সৌদি আরবকেই দুষছে হুথি বিদ্রোহীরা।

হুথিদের মুখপাত্র মোহাম্মদ আবদেল সালেম বলেছেন, সৌদি জোটের আগ্রাসনের কারণেই এভাবে দরপতনের ঘটনা ঘটেছে।

দুই বছর আগে হুথিদের বিরুদ্ধে ইয়েমেনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সদর দফতর থেকে ১০৭ মিলিয়ন ডলার ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠে। গত বছরও দেশটিতে একাধিক ব্যাংক ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া না হলে ইয়েমেনে ২০১৮ সালে দুর্ভিক্ষের তীব্রতা বাড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে ত্রাণ সংস্থাগুলো। জাতিসংঘের আশঙ্কা, দেশটিতে বিশ্ব-ইতিহাসের সবচেয়ে বড় দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য