শরণার্থী বিষয়ের দায়িত্বে থাকা মার্কিন শীর্ষ কূটনীতিক সায়মন হেনশো পদ ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

এ নিয়ে গত কয়েক সপ্তাহের মধ্যে শরণার্থীদের নিয়ে কাজ করা তৃতীয় কোনো মার্কিন কর্মকর্তা পদত্যাগ কিংবা অন্য দায়িত্বে স্থানান্তর হচ্ছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যা, শরণার্থী ও অভিবাসন বিষয়ক ব্যুরোর ভারপ্রাপ্ত সহকারী পরিচালক হেনশো এ সপ্তাহের শেষ নাগাদ দায়িত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিয়ে তার সহকর্মীদের কাছে মেইল পাঠিয়েছেন বলে রয়টার্স জানিয়েছে।

শনিবার এক সাক্ষাৎকারে হেনশো জানান, তার পদ ছাড়ার সিদ্ধান্ত ব্যুরোর নিয়মিত কর্মকাণ্ডের অংশ; এর সঙ্গে শরণার্থীদের সহযোগিতা কমানো বিষয়ক ট্রাম্প প্রশাসনের নীতির কোনো সম্পর্ক নেই।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্রও জানান, হেনশোর সরে যাওয়া রুটিন কর্মকাণ্ডেরই অংশ।

হেনশো বলেন, পররাষ্ট্র পরিষেবা কর্মকর্তার ৩৩ বছরের ক্যারিয়ারে জনসংখ্যা, শরণার্থী ও অভিবাসন বিষয়ক ব্যুরোতেই তিনি সবচেয়ে বেশি সময় কাটিয়েছেন।

“সত্যি কথা বলতে, আমার মনে হচ্ছে আমি অনেক সময় কাটিয়েছি; সাধারণত দুই তিন বছর পরপর স্থানান্তরে আমি অভ্যস্ত,” সাক্ষাৎকারে বলেন হেনশো।

নতুন মার্কিন প্রশাসন তাকে ভারপ্রাপ্ত সহকারী পরিচালক বানানোর আগে ২০১৩ সালের জুলাই থেকে হেনশো প্রধান উপ সহকারী পরিচালকের দায়িত্বে ছিলেন।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২২ জানুয়ারি থেকে হেনশের পদে ক্যারল ও কনেল’ দায়িত্ব পালন করবেন।

“এমন একটা বিশ্ব যেখানে শরণার্থী ও উদ্বাস্তুর সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে, সেখানে আমরা যতখানি করেছি, যত মানুষকে সাহায্য করতে পেরেছি তার জন্য আমাদের সবারই গর্বিত হওয়া উচিত,” সহকর্মীদের লেখা ইমেইলে হেনশো এমনটাই বলেছেন বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

গত বছর হেনশো দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে ট্রাম্প প্রশাসন যুক্তরাষ্ট্রে শরণার্থী প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ শুরু করে, এমনকী মাস চারেক এ কর্মসূচি বন্ধও রেখেছিল তারা।

মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে রয়টার্স মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের শরণার্থী ভর্তি দপ্তরের প্রধান লরেন্স বার্টলেটকে অস্থায়ীভাবে তথ্য অধিকার আইনের স্বাধীনতা বিষয়ক দপ্তরে বদলি করার কথা জানিয়েছিল।

এর আগে মার্কিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা নাগরিকত্ব ও অভিবাসন পরিষেবার শরণার্থী কার্যক্রম বিভাগের প্রধান বারবারা স্ট্রাক চলতি মাসের শেষে অবসরে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য