সুবল রায়, বিরল থেকেঃ দিনাজপুরের বিরলে আবারো যেঁকে বসেছে শীত। হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত উত্তরের দিনাজপুর জেলায় প্রতিবারের চেয়ে এবার শীতের প্রকোপ অনেক বেশি। ফলে শীত নিবারনের জন্য সকল মানুষ ছুটছে গরম কাপড়ের দোকান গুলোতে।

বুধবার বিরল শহরের ফুটপাতের বিভিন্ন দোকানে ক্রেতাদের ছিল উপচে পড়া ভিড়। এদিকে প্রচন্ড শীতের কারনে শিশু এবং বয়স্কদের বিভিন্ন প্রকার অসুখ দেখা দিয়েছে।

গৃহ পালিত পশুর দারুণ কষ্টের পাশা-পাশি খামারিরাও পড়েছেন চরম বিপাকে। সেই সাথে দুঃস্থ্য শীতার্ত মানুষের দূভোগ বাড়ছে চরম ভাবে। সরকারি ভাবে কিছু শীত বস্ত্র বিতরণ করা হলেও সেটা খুব সামান্য। ফলে বেসরকারী এবং বিত্তশালীদের এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন, এসব শীতার্ত মানুষ।

দিনাজপুর আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানাগেছে, তীব্র শৈত প্রবাহের ফলে দিনাজপুর মাপন যন্ত্রের (মিনিমাম থার্মোমিটার)পারদ গত সোমবার ৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে নিচে নেমে আসে।

ঐদিন দিনাজপুরে সর্বনি¤œ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ১৯৪৮ সালের পর গত ২০১৩ সালের ৯ জানুয়ারী অনুরুপ সর্বনি¤œ তাপমাত্র রেকর্ড করা হয়েছিল। আবার টানা ৫ বছরের রেকর্ড ভঙ্গ হয় গত সোমবার।

গত মঙ্গলবার তাপ মাত্রার কিছুটা উন্নতি হলেও বুধবার আবার নিচে নামতে শুরু করে। আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ তোফাজ্জল হোসেন জানান, বুধবার দিনাজপুরের তাপমাত্রা ছিল ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য