মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর থেকেঃ দিনাজপুরে জানুয়ারীর প্রথম থেকে বয়ে যাওয়া শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকায় হাড় কাঁপানো শীতে জনজীবন কাহিল হয়ে পড়েছে। মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারী) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

দিনাজপুর আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন জানান, দিনাজপুরে মঙ্গলবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৪ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে আগামী দুয়েক দিনের মধ্যে এই তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাবে বলে জানান তিনি।

দিনাজপুর হাড় কাঁপানো প্রচন্ড শীতে মানুষসহ অন্যান্য প্রাণিকুলও কাবু হয়ে পড়েছে। শীতের কারণে লোকজন ঘর থেকে বের হতে পারছেননা। কাজকর্ম করতে না পারায় খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষগুলো সবচেয়ে বেশী দুর্ভোগে পড়েছেন। ফলে পরিবার পরিজন নিয়ে চরম খাদ্য সংকটর রয়েছে এসব মানুষ।

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। সংবাদপত্র এসে পৌঁছেছে অন্যান্য দিনের চেয়ে দেরিতে। গত কয়েক দিন সূর্যের দেখা না মিললেও সোম ও মঙ্গলবার সূর্য দেখা গেছে। তবে সূর্যের তাপ তেমন ছিল না। ঘনকুয়াশার কারণে যানবাহন চলাচল করেছে ধীর গতিতে। ট্রেন বিলম্বে ছেড়েছে এবং পৌঁছেছে বিলম্বে।

এদিকে শীত অব্যাহত থাকায় গরম কাপড়ের দোনানে ভিড় বেড়েছে। বিত্তবানরা বড় বড় বিপনী বিতানে ভিড় করলেও নি¤œ-মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষগুলো শহরের কাচারী বাজারসহ বিভিন্ন ফুটপাতের দোকানে ভিড় করছেন। ফলে ফুটপাতের দোকানগুলোতে বেচাবিক্রি জমে উঠেছে। পুরনো কাপড় বিক্রেতা মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, গত ৩ দিনে অন্যান্য দিনের চেয়ে বেচাবিক্রি অনেক বেশী হয়েছে। আরো কয়েক দিন শীত থাকলে ভাল বেচাবিক্রি হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে দিনাজপুর জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মকলেছুর রহমান জানান, দিনাজপুর জেলায় এ পর্যন্ত ৬৮ হাজার শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে আরো ১ লাখ কম্বল চেয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয়ে ফ্যাক্স বার্তা পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য