চলতি বছরের শীতকালীন অলিম্পিকে দল পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে উত্তর কোরিয়া।

মঙ্গলবার ‘যুদ্ধবিরতি গ্রাম’ খ্যাত পানজামুনে দুই কোরিয়ার উচ্চ পর্যায়ের আলোচনায় পিয়ংইয়ং এ প্রতিশ্রুতি দেয় বলে দক্ষিণ কোরিয়ার পুনরেকত্রীকরণ বিষয়ক সহকারী মন্ত্রী চুন হায়ে সুং সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

দুই বছর পর শুরু হওয়ার আলোচনায় সিউল কোরীয় যুদ্ধে আলাদা হওয়া পরিবারগুলোর পুনর্মিলনী, সামরিক পর্যায়ে আলোচনা ও শীতকালীন অলিম্পিকে একসঙ্গে মার্চপাস্টেরও প্রস্তাব দিয়েছে বলে খবর বিবিসির।

আলোচনা প্রসঙ্গে উত্তর কোরীয় প্রতিনিধিদলের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

২০১৫ সালে কায়েসং শিল্প এলাকায় দুই কোরিয়ার মধ্যে আলোচনার পর মঙ্গলবার সকাল ১০টায় পানজামুনে দুই কোরিয়ার প্রতিনিধিরা ফেব্রুয়ারিতে দক্ষিণ কোরিয়ার পিয়ংচ্যাংয়ে হতে যাওয়া শীতকালীন অলিম্পিকে উত্তর কোরিয়ার অংশগ্রহণের সম্ভাবনা নিয়ে কথা বলতে একত্রিত হন।

আলোচনার শুরুতেই উত্তর কোরিয়া চলতি বছরের অলিম্পিকে অ্যাথলেট, কর্মকর্তা ও চিয়ার স্কোয়াড পাঠানোর প্রস্তাব দেয় বলে চুন জানান।

“উত্তরের প্রতিনিধিরা অলিম্পিকে উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল, তাদের অলিম্পিক কমিটির প্রতিনিথিদল, খেলোয়াড়, সমর্থক, শিল্পী, পর্যবেক্ষক, তায়াকান্দো প্রদর্শনকারী দল ও সাংবাদিক পাঠানোর প্রস্তাব দেয়,” বলেন তিনি।

বৈঠকে দক্ষিণের প্রতিনিধিরা কোরীয় যুদ্ধে আলাদা হয়ে পড়া পরিবারের সদস্যদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে জোর দেন; অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মার্চপাস্টে দুই কোরিয়ার খেলোয়াড়দের একসঙ্গে মার্চপাস্টেরও প্রস্তাব দেয় সিউল।

২০০৬ সালের শীতকালীন অলিম্পিকে সর্বশেষ দুই কোরিয়া এক পতাকা নিয়ে মার্চপাস্ট করেছিল।

দক্ষিণের এসব প্রস্তাব নিয়ে উত্তরের প্রতিনিধিরা কিছু বলেছেন কিনা, তা খোলাসা করেননি চুন। আলোচনা নিয়ে উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধিদলেরও কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য