কাহারোল সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় আইন ভেঙ্গে তিন ফসলি জমির উর্বর মাটি টপ সয়েল অবাদে কেটে নেওয়া হচ্ছে ইট তৈরির জন্য। জমির মালিকেরা চাপে পড়ে বা সামান্ন টাকার জন্য বোকামি করে ইট ভাটায় বিক্রি করে দিচ্ছেন এই মাটি।

ফসরি জমির উপরের দিকের ঐ মাটি সরিয়ে ফেললে জমির উর্বরতা হারাবে। কয়েক বছর ভাল ফসল ফলবেনা। কোন কোন জমিতে একে বারেই ফসল ফলবেনা। এই সর্বনাশই করা হচ্ছে কাহারোল উপজেলায়। স্থানীয় প্রসাশন এটিকে দেখেও না দেখার ভান করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয়রা জানান, ভাটার মালিকরা স্থানীয় দালালদের মাধ্যমে কৌশলে জমির মালিকদের মাটি বিক্রিতে বাধ্য করেন। গ্রামের লোকজনেরা সহজ সরল হওয়ায় ইট ভাটার মালিকের লোভনীয় ফাদে পা দিয়ে তাদের জমির উর্বরতা হারাচ্ছে। উঁচু জমি নিচু করার নামে এবং ফসল না ফলিয়ে টাকা পাওয়ার আশায় অনেক গরিব কৃষক তাদের জমির মাটি ইট ভাটার মালিকদের কাছে বিক্রি করে দিচ্ছে।

এভাবে কৃষি জমি থেকে মাটি কাটায় উর্বরতা কমার পাশা পাশি ফসল উৎপাদনের বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছে উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর। কৃষি অধিদপ্তরের মতে জমির উর্বরতা মাটির উপরের ১২ থেকে ২০ ইঞ্চির মধ্যে থাকে। তাই উপরের মাটি বিক্রি করায় জমির উর্বরতা পুরো পুরি নষ্ট হয়ে যায়।

সমাজ সচেতন ব্যক্তিরা বলেন প্রতি বছর যে হারে ফসলি জমির মাটি বিক্রি হচ্ছে তা ভালো লক্ষণ নয়। উজেলায় সকল এলাকায় সবজির আবাদ হয় প্রচুর পরিমাণে। এই উপজেলার মাটির উর্বরতা ভালো হওয়ায় যে কোন মৌসুমে যে কোন ফসল ফলালে ভালো ফলন হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য