কাহারোল (দিনাজপুর)প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের কাহারোলে হাড় কাপানো শীত ও শৈত্য প্রবাহর কারণে বিপর্যস্ত জন জীবন এবং খেটে খাওয়া মানুষজন,দিন মজুররা পড়েছে চরম বিপাকে। প্রচন্ড শীত ও শৈত্য প্রবাহর ফলে বেকার হয়ে পড়েছে কর্মজীবি মানুষ। অনেকেই ছুটছে গরম কাপড়ের দোকানগুলোতে । এর ফলে দোকানে উপচে পড়া ভীড় লক্ষ করা যাচ্ছে গরমের কাপড় কেনা-কাটাতে।

দেখা গেছে,গত ডিসেম্বরের শেষ দিক থেকে অত্র উপজেলায় শৈত্য প্রবাহ শুরু হলেও জানুয়ারি মাসে এসে শীত ও শৈত্য প্রবাহ তীব্রতা দিন দিন স্থায়ী হচ্ছে। শৈত্য প্রবাহের কারণে অসহায় হয়ে পরেছে কর্মজীবি মানুষ।গত শুক্রবার ও গতকাল শনিবার উপজেলায় সর্বত্র কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়েছে।

তাপমাত্রা নি¤œমুখী নেমে আসার পাশাপাশি প্রচন্ড হিমেল হাওয়ার জন্য অচল হয়ে পড়ায় এলাকার খেটে খাওয়া মানুষজনের জীবন যাত্রার মান নিন্মে নেমে এসেছে। শীত,শৈত্য প্রবাহর সঙ্গে ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়ছে উপজেলার গ্রামীণ জনপদ।

দেখা গেছে ,ঘন কুয়াশার ফলে সকাল থেকে বিকেল গড়িয়ে গেলেও সুর্যের মুখ দেখা মিলছে না। এদিকে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে কয়েক হাজার শীতার্ত অসহায় ও ছিন্নমুল মানুষজনেরা এই প্রচন্ড শীত ও শৈত্য প্রবাহর কারণে কর্মহীন হয়ে পড়েছে। খেটে খাওয়া কর্মজীবি মানুষ গুলো অনাহারে-অর্ধাহারে দিন অতিবাহিত করছে।

প্রচন্ড শীত ও শৈত্য প্রবাহর কারণে হাট-বাজার গুলোতে লোকজন এর উপস্থিতি একেবারে কমে গেছে এবং শিশু ও বৃদ্ধদের অবস্থা সবচেয়ে বেশি কষ্টকর। ঠান্ডা ও শীত জনিত নানা রোগে অসুস্থ হয়ে আবার অনেকেই হাসপাতালে ভর্তি হতে দেখা গেছে।

অপরদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসিম আহমেদ সঙ্গে সরকারী শীতবস্ত্র পাওয়ার ব্যাপারে কথা হলে তিনি জানান, এ পর্যন্ত ৩ হাজার পিচ কম্বল বরাদ্ধ পাওয়া গেছে এবং সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের নিকট গরীব,দুস্থ ও অসহায়দের মাঝে বিতরণের লক্ষে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য