ভারতের জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন তথ্যভাণ্ডার থেকে একশ কোটির বেশি নাগরিকের তথ্য চুরি করে অনলাইনে বিক্রির অভিযোগে একটি মামলা হয়েছে।

বিবিসি জানায়, ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অব ইন্ডিয়া (ইউআইডিএআই) তাদের তথ্যভাণ্ডার ‘অবৈধ প্রবেশের’ বিষয়ে তদন্ত চেয়ে ওই মামলাটি করেছে।

যদিও নাগরিকদের ‘বায়োমেট্রিক ডেটা’ নিরাপদ আছে বলে দাবি ইউআইডিএআই কর্তৃপক্ষের।

ভারতের দৈনিক ট্রিবিউনের এক প্রতিবেদনে একজন ‘এজেন্টের’ মাধ্যমে নাগরিকদের ব্যক্তিগত তথ্য হাতে পাওয়ার দাবি করা হয়। এজন্য তাদের মাত্র ৭ দশমিক ৮ মার্কিন ডলার খরচ করতে হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, হোয়াটসঅ্যাপে তাদের বিজ্ঞাপন নিয়ে কাজ করেন এমন এক ব্যক্তির মাধ্যেমে তারা ওই তথ্য পান।

“ওই এজেন্টকে টাকা দিলে তিনি আমাদের প্রতিবেদককে একটি ‘ইউজারনেম’ ও ‘পাসওয়ার্ড’ দেন। যা ব্যবহার করে ইউআইডিএআই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে সেখানে থাকা যেকোনো ‘আধার’ সদস্যের নাম, ঠিকানা, ছবি, ফোন নম্বর, ইমেইল আইডিসহ সব তথ্য জানা যায়।”

ভারতে ইউআইডিএআই বায়োমেট্রিক সিস্টেম ‘আধার’ নামে পরিচিত। ইউআইডিএআই থেকে জনগণকে যে পরিচয় পত্র দেওয়া হয় তা নাম আধার কার্ড।

এমনকি মাত্র তিনশ রুপি দিলে এমন একটি ‘সফ্টওয়্যার’ দেওয়া হয় যার মাধ্যমে ‘আধার কার্ড’র প্রিন্ট বের করা যায়।

ট্রিবিউনের প্রতিবেদন প্রকাশের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হইচই পড়ে যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য