সচেতন নাগরিক কমিটি(সনাক), দিনাজপুর এর উদ্যোগে ৩ জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২.০০টায় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে স্বাস্থ্য সেবার মানোন্নয়নে সেবাদাতা ও সেবাগ্রহীতা এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রাতিষ্ঠানিক স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরাসহ সেবাদাতা ও সেবাগ্রহীতাদের মধ্যে সম্পর্কের উন্নয়ন সাধন এবং সেবাগ্রহণকারীদের মধ্যে সচেতনতা আরও বৃদ্ধির লক্ষ্যে হাসপাতালের সস্মেলন কক্ষে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে হাসপাতালের সেবাগ্রহীতারা সেবা সম্পর্কিত বিভিন্ন ইতিবাচক ও নেতিবাচক দিক আলোচনায় নিয়ে আসেন। সনাক সভাপতি মোঃ সফিকুল হক ছুটু এর সভাপতিত্বে সভায় স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সনাক স্বাস্থ্য উপ-কমিটি’র আহ্বায়ক ডাঃ ইলিয়াস আলী খান এডিন। সভার শুরুতেই হাসপাতালে সনাক কর্তৃক বাস্তবায়িত কার্যক্রমে বর্ণনা প্রদান করা হয় এবং হাসপাতালের বর্তমান অবস্থা সকলের উদ্দেশ্যে একনজরে তুলে ধরেন আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: পারভেজ সোহেল রানা।

উন্মোক্ত প্রশ্নোত্তর পর্বে হাসপাতালের সঠিক সেবা, চিকিৎসকগণের নামের তালিকা নিয়মিত আপডেট রাখা, ঔষধের তালিকা আপডেট রাখা, জরুরী বিভাগে সার্বক্ষণিক ডাক্তারের উপস্থিতি, নার্সদের সঠিক দায়িত্ব পালন, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, সিটিজেন চার্টার স্থাপন, ব্রেষ্ট ফিডিং কর্ণার চালু করা ও অন্যান্য বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নিকট মৌখিক বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন উত্থাপন করা হয়। আবাসিক মেডিকেল অফিসার, বিভিন্ন বিভাগের সিনিয়র চিকিৎসকগণ ও সিভিল সার্জন ডা: মওলা বকস চৌধুরী অনুষ্ঠানে পর্যায়ক্রমে সকল প্রশ্নের উত্তর প্রদান করেন।

উন্মুক্ত প্রশ্নোত্তর পর্বে জেনারেল হাসপাতালের সমস্যা গুলির মধ্যে চিকিৎসকের সমস্যা। কর্তৃপক্ষ জানান ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল কিন্তু ১০০ শয্যার লোকবল দিয়েই হাসপাতালে রোগীর সেবা দেয়া হচ্ছে। বর্তমানে সব বিভাগে চিকিৎসক নেই তবে জনগনের সঠিক সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কর্তৃপক্ষ সার্বক্ষণিক চেষ্টা চালাচ্ছে। হাসপতাল স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা কমিটি’র সভাটি নিয়মিত আয়োজনের সর্বাত্তোক চেষ্টা চালানো হচ্ছে। শতভাগ সমস্যার সমাধান করা সম্ভব হচ্ছে না তবে, সঠিক সেবা নিশ্চিত করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। সিভিল সার্জন আরও জানান হাসপাতালের সেবার মান পূর্বের তুলনায় অনেক বেড়ে গেছে। আপনাদের সকলের সহযোগিতায় ভবিষ্যতে আরও ভাল সেবা প্রদান করা সম্ভব হবে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সেবাগ্রহীতাদের সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সনাকে‘র সার্বিক সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানান।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক আরও মেনোযোগি হয়ে সেবাগ্রহীতাদের জন্য সঠিক সময়টুকু ব্যয় করেন পাশাপাশি সেবাগ্রহীতারাও যদি সেবাদাতাগণের সাথে ভাল আচরন করেন তাহলে অভিযোগ অনেকাংশে কমে আসবে। আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন, ডা: ইসরাত শারমিন, ডা: মো: শাহজাহান আলী সাগর, ডা: মাসুদ রেজা খান, ডা: আজগর আলী, ডা: মো: ওয়াহেদুল হক, মিডিয়ার প্রতিনিধিবৃন্দ, সনাক ও স্বজন সদস্যবৃন্দ, ইয়েস সদস্যরা ও হাসপাতালের অন্যান্য কর্মকতা কর্মচারীবৃন্দ এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিবর্গ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য