আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় মুর্দি দোকান, বসতবাড়ী ব্যাপক ভাংচুর, লুন্ঠন, স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ অর্থসহ প্রায় ৬ লক্ষ টাকার অপুরনীয় ক্ষতিসাধন করা হয়েছে।

এ ঘটনায় উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৭ জন আহত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার এ বাপারে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছে।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাড়াইপাড়া গ্রামের উন্মুক্ত একটি জলাশয়ে এলাকাবাসী প্রতিদিনের গোসল করাসহ মাছ ধরে আসছিল।

অন্যান্য দিনের ন্যায় ঘটনার দিন রোববার বিকেলে ওই জলাশয়ে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে বাড়াইপাড়া গ্রামের মাসুদ মিয়ার ছেলে শয়ন মিয়া (১৮) এবং একই ইউপি’র নুরপুর মৃত হাজী বাদশা মিয়ার ছেলে লেলিন মিয়ার (৩৫) সাথে বাকবিতন্ডের সূত্রপাত ঘটে। এক পর্যায়ে উভয়ের পক্ষের লোকজনসহ এ নিয়ে তুমুল সংঘর্ষ ঘটে।

এ ঘটনায় পরবর্তীতে মাছ ধরার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় সংঘর্ষ ঘটে। এ পর্যায়ে প্রায় সন্ধ্যার দিকে লেলিন গংরা মারমুখী হয়ে প্রথমে শয়নের বাড়ীতে এবং পরে প্রতিবেশী আনোয়ার হোসেনের ছেলে মাহফুজার রহমানের বাড়ীতে হামলা চালায়।

হামলার শিকার মাহফুজারের পরিবার কিছু বুঝে ওঠার আগেই সংঘবদ্ধ হামলাকারীরা বসতবাড়ীতে অবস্থিত মুর্দি দোকান, শয়ন ঘরের আসবাবপত্র, টিভি, ফ্রিজ, কম্পিউটার ভাংচুরসহ অন্যান্য মালামালের অপুরণীয় ক্ষতিসাধন করে। লুন্ঠনকারীরা সুযোগ বুঝে তিন ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও ২ লাখ ১০ হাজার হাতিয়ে নেয়।

এদিকে, প্রতিপক্ষ লেলিন গংদের ভয়ে ভীত সন্ত্রস্ত মাহফুজার পরিবারসহ অন্যান্যরা ভয়ে বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পক্ষে মাহফুজার রহমান বাদী হয়ে এজাহার নামীয় ১৭ ও অজ্ঞাত ৮/১০ জনসহ ২৭ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য