‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবিতে কে কে অভিনয় করছেন? মাসুদ হাসান উজ্জ্বল বলেন, ‘আমার ছবিতে নায়ক-নায়িকা মুখ্য নন। আমি মনে করি, এই ছবির গল্প হবে মূল আকর্ষণ। আমি একটা গল্প বলতে চেয়েছি। তাই কে কে অভিনয় অভিনয় করছেন, এই দিকটাতে আমি প্রাধান্য দিইনি। গল্প যতটুকু চেয়েছে, আমি আমার মতো করে শিল্পীদের কাছ থেকে তার পুরোটাই বের করে নিয়েছি। যখন তাঁরা ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছেন, তখন চিত্রটাই পাল্টে গেছে।’

তবে মাসুদ হাসান উজ্জ্বল জানান, ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবিতে প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করছেন শারলিন ফারজানা ও ইমতিয়াজ বর্ষণ। এরপর কথা হয় এই দুই অভিনয়শিল্পীর সঙ্গে। শারলিন ফারজানা ২০১৪ সাল থেকে নাটকে অভিনয় করছেন।

তাঁর উল্লেখযোগ্য কাজ মাসুদ হাসান উজ্জ্বলের ‘দাস কেবিন’, তানিম রহমান অংশুর ‘হঠাৎ তোমার জন্য’, মেহেদী হাসানের ‘টুকরো প্রেমের বাঁধন’, কৌশিক শংকর দাশের ‘অচেনা মেঘের সন্ধানে’। সম্প্রতি অভিনয় করেছেন পরমব্রতের পরিচালনায় ‘ফেলুদা’ সিরিজেও। পাশাপাশি বিজ্ঞাপনচিত্রেও কাজ করছেন। চলচ্চিত্রে এবারই প্রথম।

শারলিন ফারজানা জানান, তিনি আইন নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবিতে দুটি চরিত্রের জন্য অডিশন দিয়েছেন। তবে শেষ পর্যন্ত ‘নিরা’ চরিত্রের জন্য তাঁকে চূড়ান্ত করা হয়। বললেন, ‘চলচ্চিত্রে অভিনয় করে খুব মজা পেয়েছি। মনস্তাত্ত্বিক চরিত্র, তাই চরিত্রটিকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছি। এর মধ্যে অনেক দিন নতুন কোনো কাজ করিনি।’

ইমতিয়াজ বর্ষণ জানান, তিনি চট্টগ্রামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছেন। কাজ করছেন মঞ্চেও। ছিলেন তির্যক নাট্যগোষ্ঠীর সদস্য। এখন অতিথি শিল্পী হয়ে নাটকের বিভিন্ন দলের সঙ্গে কাজ করেন। ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ তাঁর চতুর্থ ছবি। এর আগে তিনি ওয়াহিদ তারেকের ‘আলগা নোঙর’, এন রাশেদ চৌধুরীর ‘চন্দ্রাবতী কথা’ আর অঞ্জন সরকারের ‘ক্ষত’ ছবিতে অভিনয় করেছেন।

‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবিতে কাজ করার অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে বললেন, ‘মাসুদ হাসান উজ্জ্বল অনেক গুছিয়ে কাজ করেন। খুব পরিপাটি। কোথাও এতটুকু ছাড় দেননি। শুটিং শুরুর আগে সেপ্টেম্বর আর অক্টোবর মাসে মহড়া করেছি। সপ্তাহের শুক্রবার ও শনিবার ঢাকায় আসতাম, মহড়া শেষে রোববার গিয়ে অফিস করতাম।’

আর মাসুদ হাসান উজ্জ্বল বললেন, ‘নতুনদের নিয়ে কাজ করার সুবিধা আর অসুবিধা দুই-ই আছে। অভিনয়ে যে দক্ষতা বা পরিপক্বতা একটা চলচ্চিত্রের জন্য দরকার হয়, সেটা হয়তো অতটা তৈরি অবস্থায় পাওয়া যায় না। সেই জন্য আমরা তিন মাস টানা লাইট ও ক্যামেরার সামনে মহড়া করেছি। ফলে শুটিংয়ে আমরা শারলিন ফারজানা বা ইমতিয়াজ বর্ষণকে নিয়ে যাইনি, আমরা নিয়ে গিয়েছি অয়ন আর নিরাকে। এখন চোখ বন্ধ করে বলে দেওয়া যায়, তাঁদের অভিনয়ে কোনো ধরনের পরিপক্বতার অভাব চোখে পড়বে না। দুজনই দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন।’

ছবির নাম ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ কেন? নির্মাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বল বলেন, ‘সবার জীবনেই কিছু অনুভূতি থাকে, যা ভাষা, প্রতীক বা শব্দে প্রকাশ করা যায় না। অনুভবগুলো অনুভূত হতে হতেই যেন তার প্রকাশের আকৃতি বদলে যায়। এ রকম অনুভূতির ইংরেজি ব্যাখ্যা হতে পারে “ইনকমপ্লিট ব্রেথ”। এই অসম্পূর্ণ প্রশ্বাসের চলচ্চিত্র “ঊনপঞ্চাশ বাতাস”। এখানে গল্পটা প্রেমের, যে প্রেম কোলাহলকে পরিণত করতে পারে নির্জনতায়।’

নাটক, টেলিছবি আর বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বল এবার চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন। তাঁর অন্য পরিচয়গুলো হলো, তিনি নাট্যকার, শিল্পনির্দেশক, গীতিকবি, সুরকার, সংগীত পরিচালক এবং গায়ক। তাঁর প্রথম ছবি ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’। এরই মধ্যে ছবির শুটিং শেষ হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য