জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার পর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে আসছে ফিলিস্তিনিরা।

শুক্রবারও কয়েক হাজার ফিলিস্তিনি গাজা ও ফিলিস্তিনের ইসরায়েল অধিকৃত পশ্চিম তীরে ট্রাম্প-বিরোধী বিক্ষোভ করেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বিক্ষোভ চলাকালে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে অন্তত ৫০ জন বিক্ষোভকারী আহত হয়েছেন। এদের অধিকাংশই গাজা সীমান্ত বরাবর এলাকায় জখম হয়েছেন।

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, সৈন্যরা তাদের বিরুদ্ধে হুমকি হয়ে ওঠা ‘প্রধান উস্কানিদাতাদের’ গুলি করেছেন, যারা সীমান্তের নিরাপত্তা বেড়াগুলো ভাঙার চেষ্টা করছিল।

তিনি আরো জানান, পশ্চিম তীর ও গাজায় প্রায় চার হাজার ফিলিস্তিনি রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে। তারা ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে পাথর ছোড়ে ও পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করে এবং নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায়।

ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনী মূলত কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ করে এর জবাব দেয় বলে দাবি করেন তিনি।

গাজার বিক্ষোভকারীরা ‘আমেরিকার মৃত্যু হোক, ইসরায়েলের মৃত্যু হোক, ট্রাম্পের মৃত্যু হোক’ বলে শ্লোগান দেয়।

অপরদিকে ফিলিস্তিনি যোদ্ধারা ইসরায়েলের দিকে রকেট ছোড়ে। এর জবাবে ইসরায়েলি ট্যাঙ্ক থেকে গাজায় গোলা নিক্ষেপ করা হয় এবং ইসরায়েলি জঙ্গিবিমান ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডটিতে হামলা চালায়।

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, ইসরায়েলের দিকে ছোড়া তিনটি রকেটের মধ্যে দুটি প্রতিহত করার পর তারা গাজা নিয়ন্ত্রণকারী ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাসের অবস্থানগুলোতে হামলা চালিয়েছে।

ইসরায়েলি পুলিশ জানিয়েছে, তৃতীয় রকেটটি একটি ভবনে আঘাত করেছে, এতে ভবনটির কিছু ক্ষয়ক্ষতি হলেও কেউ আঘাত পায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘদিনের অনুসৃত নীতি উল্টে দিয়ে ৬ ডিসেম্বর জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ইসরায়েল-ফিলিস্তিনি দ্বন্দ্বের সবচেয়ে স্পর্শকাতর বিষয়টিতে ট্রাম্পের এই একপেশে সিদ্ধান্তে ফিলিস্তিনিরা চরম ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে এবং পুরো মধ্যপ্রাচ্য ও বিশ্ব শক্তিগুলোর মধ্য ক্ষোভ তৈরি হয়।

পুরো জেরুজালেমকে নিজেদের ‘শাশ্বত’ রাজধানী হিসেবে বিবেচনা করে ইসরায়েল। অপরদিকে পূর্ব জেরুজালেমকে নিজেদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের রাজধানী হিসেবে চায় ফিলিস্তিন।

১৯৬৭ সালের আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের সময় পূর্ব জেরুজালেম দখল করে নিজেদের ভূখণ্ডের অন্তর্ভুক্ত করে নেয় ইসরায়েল। কিন্তু আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ইসরায়েলের এ পদক্ষেপের স্বীকৃতি দেয়নি।

বিশ্বের বেশিরভাগ রাষ্ট্রই চায়, জেরুজালেমের মর্যাদা ইসরায়েল-ফিলিস্তিনের সমঝোতার মাধ্যমে নির্ধারিত হউক।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য