আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ সুন্দরগঞ্জসহ গাইবান্ধা জেলা সদরের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর জরুরী পুনর্বাসন ও ক্ষমতায়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে একটি বেসরকারী স্বেচ্ছচারী সংস্থা ‘আরডিআরএস-বাংলাদেশ’।

বুধবার প্রকল্পের এলাকা পরিদর্শনে জানা যায়, নদ-নদী বেষ্টিত উপজেলা দু’টির বিভিন্ন ইউনিয়নের মধ্যে কামাড়জানী, মোল্লার চর, হরিপুর ও কাপাসিয়া ইউনিয়নের ৮’শ ২৫ টি করে মোট ৩ হাজার ৩’শ টি পরিবারকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। ইউকেএইড’র অর্থায়নে ইউএনওপিএস’র মাধ্যমে ভ্যানচার্চ এইড’র সহযোগীতায় প্রকল্পিটি বাস্তবায়ন করছে ‘আরডিআরএস বাংলাদেশ’।

২০১৭ সালের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ অতি দরিদ্র, নারী প্রধান, পরিবার প্রতিবন্ধি, পিছিয়ে পড়া ও অন্য কোন সংস্থার সহায়তা বঞ্চিত এমন পরিবারে সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রশাসন, ইউনিয়ন ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সহায়তায় প্রকল্পের প্রদেয় সব ধরণের সহায়তা ডাচবাংলা ব্যাংকে মোবাইল ব্যাংকিং’র মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট উপকারভোগীদের প্রদানের সিদ্ধান্ত রয়েছে।

প্রকল্পের মেয়াদ ৯ অক্টোবর ২০১৭ থেকে ৮ এপ্রিল ২০১৮ সাল পর্যন্ত যেসব সহায়তা প্রদানের কথা রয়েছে। তা হলো কৃষি উপকরণ, স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা স্থাপন, নলকূপ মেরামত ও প্লাটফর্ম উচুকরণ, কাজের বিনিময়ে অর্থ প্রদান, সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ ও জীবিকায়ন পরিকল্পনার বিপরীতে অর্থ প্রদান।

এসব ইউনিয়নে ৩টি করে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গঠন পূর্বক উপকারভোগী পরিবার প্রধানদের নাম অন্তর্ভূক্তকরণ হয়েছে স্বচ্ছতার ভিত্তিতে। প্রত্যেকটি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটিতে সভাপতি হিসেবে রয়েছেন স্ব-স্ব ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত নারী সদস্যগণ।

তারা হলেন-(যথাক্রমে) সম্পা বেগম, দুলালী বেগম, মালেকা বেগম, হামিদা বেগম, কুলছুম বেগম, রেজিনা বেগম, হানিফা বেগম, আয়শা বেগম, মরিয়ম বেগম, আছমা বেগম, সাজেদা বেগম ও বুলবুলি বেগম। ‘আরডিআএস-বাংলাদেশ’ কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন উক্ত প্রকল্পের কর্মকর্তা ছিদ্দিকুর রহমান, পোরসিয়া রহমান, আঃ রশিদ ও মাঠ সহায়ক নজরুল ইসলামকে সঙ্গে নিয়ে এসব প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনকালে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সকল সদস্য, উপকারভোগী ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা হলে এ প্রকল্পের ইতিবাচক দিক তুলে ধরে এর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে বলে জানান তারা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য