রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন জোর দিয়ে বলেছেন, সিরিয়ায় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাবে তার দেশ। সোমবার রাতে রাশিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের এক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে এই ঘোষণা দেন পুতিন।

তিনি বলেন, সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে এখন আর সিরিয়ার আগের মতো ব্যাপক সহায়তার প্রয়োজন নেই। কিন্তু তারপরও সন্ত্রাস নির্মূল অভিযানে সিরিয়ার সেনাবাহিনীর পাশে থাকবে রাশিয়া।

সিরিয়া থেকে রাশিয়া তার বেশিরভাগ সেনা সরিয়ে নিলেও এখনো দেশটিতে রাশিয়ার দু’টি সামরিক ঘাঁটি বহাল রয়েছে। হামিমিমে রয়েছে রাশিয়ার বিমান ঘাঁটি এবং তারতুস বন্দরে রয়েছে একটি রুশ নৌঘাঁটি।

২০১১ সালে সৌদি আরব, আমেরিকা ও তাদের মিত্র দেশগুলোর সমর্থনপুষ্ট উগ্র জঙ্গি গোষ্ঠীগুলো সিরিয়ায় আগ্রাসন চালায়। মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতিকে ইহুদিবাদী ইসরাইলের অনুকূলে নেয়ার লক্ষ্যে ওই সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোকে লেলিয়ে দেয়া হয়েছিল।

সিরিয়া সরকার তখনই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা দেয়ার জন্য ইরান ও রাশিয়ার প্রতি অনুরোধ জানায়।

সম্প্রতি সিরিয়ার সেনাবাহিনী রাশিয়ার প্রত্যক্ষ সামরিক সহযোগিতা এবং ইরানের সামরিক উপদেষ্টাদের সহায়তায় উগ্র জঙ্গি গোষ্ঠী দায়েশকে পরাজিত করতে সক্ষম হয়েছে। বর্তমানে সিরিয়ার কোনো শহর বা এলাকা দায়েশের নিয়ন্ত্রণে নেই। কিন্তু তারপরও দেশটির দেইর আজ-জোর ও হোমস প্রদেশের মরুভূমিতে কিছু দায়েশ জঙ্গি ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য