imagesসাহেব, দিনাজপুর  : দিনাজপুর শহরে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে কোচিং সেন্টার। প্রাথমিক, মাধ্যমিক, মাদ্রাসা এবং কলেজগুলোতে পাঠদান কার্যক্রমও নাজুক হয়ে পড়েছে। শিক্ষক সংকট, প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র, শিক্ষা উপকরণ অপ্রতুলসহ নানা কারণে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা ব্যবস্থা অবহেলিত হচ্ছে। কলেজের বিভিন্ন বিষয়ের বিভাগীয় প্রধানেরা রয়েছেন নানা-রকম কোচিং বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ডের প্রতিযোগিতায়। আর এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এক শ্রেণীর শিক্ষক গড়ে তুলেছেন কোচিং সেন্টার। যেখানে তারা বিভিন্ন ব্যাচ ভাগ করে ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে পাঠদানের নামে চালিয়ে যাচ্ছেন কোচিং বাণিজ্য। ফলে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা পড়েছে চরম বিপাকে। ক্লাসে পাঠদানে সচেষ্ট না হলেও প্রতিষ্ঠানের কিছু সংখ্যক শিক্ষক ছাত্রছাত্রী তাদের নিজস্ব কোচিংয়ে পড়তে বাঁধ্য করে বলে একাধিক সূত্র দাবি করে। বিভিন্ন মহল্লায় ও বাসা বাড়ি ভাড়া নিয়ে কোচিং সেন্টার খুলেছেন অধিকাংশ শিক্ষক-শিক্ষিকা। তারা সকাল, বিকেল এবং গভিড় রাত পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীদের কোচিং করে থাকেন। অনেক শিক্ষক-শিক্ষিকা নিজের বাসায় প্রাইভেট পড়ানোর নামে কোচিং ব্যবসা চালিয়ে যাচেছন। শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রতি মাসে ৫-৭শ টাকা করে নেওয়া হয়। প্রাইভেট পড়া ও কোচিংয়ের নামে দিনাজপুরে শিক্ষকেরা ঝুঁকে পড়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দিনাজপুর সদর সহ ১৩ উপজেলায় বহু সংখ্যক কোচিং সেন্টার ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে উঠেছে। আর এসব কোচিং সেন্টারে ব্যবসার মহোৎসব হয়ে দাড়িয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য