বড়দিনে সানফ্রান্সিসকোতে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করছে সন্দেহে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক এক মেরিন সেনাকে গ্রেপ্তার করেছে এফবিআই।

ছদ্মবেশি এক এফবিআই এজেন্টের সঙ্গে হামলার পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনার পর ২৫ বছর বয়সী এভেরিত আরন জেমিসনকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে বিবিসি জানিয়েছে।

জেমিসন সানফ্রান্সিসকো শহরের পিয়ার থার্টিনাইন এলাকায় হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছিলেন বলে অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে। এলাকাটি শহরটিতে আসা পর্যটকদের অন্যতম প্রিয় জায়গা।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে অস্ত্র, উইল ও হামলার দায় স্বীকার করা একটি পত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

চিঠিতে জেমিসন হামলার জন্য জেরুজালেম নিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করেছেন বলে এফবিআইয়ের অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে।

এ মাসের শুরুতে ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের অনুসৃত কয়েক দশকের পররাষ্ট্রনীতি হঠাৎ করেই বদলে ফেলে জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি এবং ইসরায়েলে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস তেল আবিব থেকে জেরুজালেমে স্থানান্তরের নির্দেশ দেন। তার এসব পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়ায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তীব্র সমালোচনা চলছে।

এফবিআই বলছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘মৌলবাদী জিহাদি ধ্যানধারণা’ প্রকাশ ও জঙ্গি গোষ্ঠী আইএসের প্রতি সমর্থন জানানোর পর চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে জেমিসন তাদের নজরে আসেন।

সাবেক এ মেরিন সেনা গত ৩১ অক্টোবর নিউ ইয়র্কে ট্রাক তুলে দেওয়াসহ অনেকগুলো হামলার ঘটনাতেও সমর্থন প্রকাশ করেছেন বলে এফবিআইয়ের অভিযোগ।

জেমিসন হামলার জন্য পিয়ার থার্টিনাইনকে বেছে নিয়েছিলেন কারণ ‘আগে ওই এলাকায় তিনি ছিলেন এবং সেটি যে একটি জনাকীর্ণ এলাকা তা জানতেন’ বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

বিবিসি বলছে, সানফ্রান্সিসকোর পায়ার থার্টি নাইন এলাকাটি রেস্টুরেন্ট, দোকান ও সেখানে থাকা সামুদ্রিক প্রাণী সি-লায়নের জন্য বিখ্যাত।

এফবিআইয়ের কর্মকর্তাদের অভিযোগ, হতাহতের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য জেমিসন জনকীর্ণ ‘টানেল’ অথবা ‘ফানেলের’ মতো ছোট জায়গায় হামলার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন।

এফবিআই জানিয়েছে, ছদ্মবেশি এজেন্টের সঙ্গে আলোচনার সময় জেমিসন এমন কিছু উপাদান চেয়েছিলেন, যা দিয়ে পাইপ বোমা বানানো সম্ভব।

কিন্তু ১৮ ডিসেম্বর হামলার বিষয়ে তাকে দ্বিধান্বিত দেখা যায়। সেসময় ছদ্মবেশি এজেন্টকে জেমিসন বলেন, “আমার মনে হয় না, শেষ পর্যন্ত আমি এটা করতে পারবো। আবার বিবেচনা করে দেখছি আমি।”

এরপরই জেমিসনের বাড়ি তল্লাশির ওয়ারেন্ট জারি হয়। পরে তার বাড়ি থেকে বেশ কয়েকটি আগ্নেয়াস্ত্র এবং সংশ্লিষ্ট উপাদান জব্দ করা হয়।

তার বিরুদ্ধে বিদেশি সন্ত্রাসী সংগঠনকে উপাদানগত সহায়তা দেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে।

২০০৯ সালে জেমিসন যুক্তরাষ্ট্রের মেরিন বাহিনীর নবাগত সৈন্য হিসেবে বুনিয়াদি প্রশিক্ষণে যুক্ত হয়েছিলেন বলে বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। কিন্তু নিজের হাঁপানির কথা গোপন রাখায় তাকে বাহিনী থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য