সংবাদ সম্মেলনঃ চাঁদাবাজ-সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার এবং কঠোর শাস্তির দাবীতে দিনাজপুরে সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন করেছে নির্যাতিত মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সন্তানেররা।

গত আগষ্ট মাসে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আব্দুল করিমের নিকট চাঁদা দাবী করে সন্ত্রাসীরা। চাঁদাবাজীর মামলা করায় চলতি মাসেই সন্ত্রাসীরা তাকে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গেছে। ওই ঘটনায় করা মামলায় আসামীরা গ্রেফতার হয়ে জেলহাজতে গেলেও আবারো জামিনে বেড়িয়ে এসে এখন হত্যার হুমকীসহ বসতবাড়ি হতে স্বপরিবারে উচ্ছেদের হুমকী দিচ্ছে।

বুধবার সকাল ১১টায় দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত অভিযোগ গুলো করেছেন দিনাজপুর সদরের ১নং চেহেলগাজী ইউনিয়নের বড়ইল বটতলী গ্রামের মৃতঃ বীর মুক্তিযোদ্ধা মাইনুদ্দীনের সন্তান আব্দুস সাত্তার।

তিনি অভিযোগে আরো বলেছেন, মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী মমতাজ,জনি,মকবুল,সাব্বির ও রকি এলাকায় সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসীদলের নেতৃত্ব দেয়,এদের বিরুদ্ধে কেউ মুখখোলার সাহস পর্যন্ত পায়না। আমার ভাইয়ের কাছে চাঁদার দাবী করলে গত আগষ্টে উল্লেখিত আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়, মামলা নং জি আর ১৪৪৪।

মামলার পর পুলিশ আসামীদের আটক করে জেলে পাঠায়। কিছুদিন হলো আসামীরা জামিনে এসেছে এরই মধ্যে গত ১২ই ডিসেম্বর সন্ধ্যায় আবারো আব্দুল করিমকে আটক করে নিষ্ঠুর ভাবে পিটিয়ে হাত ও পা ভেঙ্গে দিয়েছে। ওই সময় তার পকেটে থাকা ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়।

সন্ত্রাসীরা অত্রাঞ্চলের চিহিৃত সন্ত্রাসী এবং একাধিক মামলার আসামী হওয়ায় তাদের সীমাহীন অত্যাচার এলাকার মানুষ নিরবে সহ্য করছে। আমরা স্থানীয়দের মত নির্যাতিত ও নিষ্ঠুর নির্যাতন সহ্য করেছি কিন্তু পরিবারের অন্যান্য মানুষগুলোর জীবন হুমকীর মধ্যে পড়ায় আইনের আশ্রয় নিয়েছি এবং সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগীতা পেতে চাই। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় হিংস্র প্রকৃতির ওই সন্ত্রাসীরা যে কোন সময় আমাদের জীবনহানি ঘটাতে পারে,আমরা পুলিশ প্রশাসনের নিকট জানমাল ও সম্পদের নিরাপত্তা চাই।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন,আনোয়ার হোসেন,নওশাদ আলী,মাহাবুবুর রহমান,মোছাঃ বেলী বেগম,চান্দু মিয়া ও আল নাইমসহ এলাকার অনেক নির্যাতিত মানুষ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য