অনেক দিন থেকেই ক্যামেরার সামনে আসছেন না ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় মুখ শাবনূর। তবে নতুন বছরে ভিন্ন লুকে দর্শকের সামনে নতুন কাজ নিয়ে হাজির হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এজন্য নিয়মিত ব্যায়াম করছেন তিনি। দৈনিক খাবারেও এনেছেন বেশ পরিবর্তন। শাবনূর বলেন, চলচ্চিত্র থেকেই আমি আজকের শাবনূর। আমার কাজ করতে কোনো আপত্তি নেই।

তবে বর্তমানে আমি বেশ মুটিয়ে গেছি। তাই কাজ করতে ইচ্ছে করছিল না। শরীরে মেদ কমানো অনেক কঠিন একটা কাজ। আমি ওজন কমানোর চেষ্টা করছি। আর নতুন বছরে কাজ শুরু করার ইচ্ছেও রয়েছে। নিয়ম মেনে চলার চেষ্টা করলেও অনেক সময় তা হয়ে ওঠে না। তবে বড়পর্দায় কাজ এখন না করলেও ভক্তদের নিকট শাবনূর মানেই যেন সমৃদ্ধ এক তারকা।

যে নামের জন্য ভক্তরা আজও পাগল। রুপালি পর্দার জনপ্রিয় এই অভিনেত্রীর আজ জন্মদিন। তবে এ দিনটি নিয়ে কোনো পরিকল্পনা নেই তার। কারণ তার মা আছেন অস্ট্রেলিয়াতে। মাকে ছাড়া পরিকল্পনা করে নিজের জন্মদিন উদ্যাপন করার কোনো আগ্রহ নেই শাবনূরের। তবে নিজের কোনো পরিকল্পনা না থাকলেও দিনজুড়েই হয়তো থাকবে তার ব্যস্ততা। নিজের জন্মদিন প্রসঙ্গে শাবনূর বলেন, এবার আমি একা।

আগের বার অস্ট্রেলিয়াতে আম্মু এবং পরিবারের অন্য সদস্যরা মিলে জন্মদিন উদ্যাপন করেছি। কিন্তু এবার কেউ পাশে নেই। তাই জন্মদিন নিয়ে কোনো পরিকল্পনাও নেই। তাছাড়া কিছুদিন আগে আমি বেশ অসুস্থ ছিলাম। এখনো পুরোপুরি সুস্থ না। সুস্থ হয়ে কাজ শুরু করতে চাই। সবমিলিয়েই কোনো অনুষ্ঠান করা হচ্ছে না এবার।

জন্মদিনে শুধু সবার কাছে দোয়া চাই যেন সুস্থ থাকি, আমার একমাত্র সন্তান আইজানকে নিয়ে যেন ভালো থাকতে পারি। আম্মু এবার পাশে নেই। তাই আম্মুকেও বেশ মিস করছি। প্রয়াত কিংবদন্তি চলচ্চিত্র পরিচালক এহতেশামের হাত ধরে ‘চাঁদনী রাতে’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে চলচ্চিত্রে শাবনূরের অভিষেক হয়। এই চলচ্চিত্রে শাবনূরের বিপরীতে অভিনয় করেন সাব্বির।

জহিরুল হকের ‘তুমি আমার’ চলচ্চিত্রে সালমান শাহর সঙ্গে জুটিবদ্ধ হয়ে অভিনয় করেন সালমান-শাবনূর। এরপরের ইতিহাসটা সবার জানা। একের পর এক হিট চলচ্চিত্র দর্শকদের উপহার দেন শাবনূর। চলচ্চিত্রে যখন শাবনূর কাজ শুরু করলেন সেসময় কিভাবে তার জন্মদিন পালন হতো জানতে চাইলে শাবনূর জানান, পরিচালক এহতেশাম বেঁচে থাকাকালীন একবার বিরাট আয়োজনে তার জন্মদিন উদ্যাপন করা হয়।

তাতে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। আর সেটিই তার অভিনয় জীবনের সেরা জন্মদিন। এদিকে রাজধানীর বারিধারা এলাকায় অবস্থিত সিডনি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের দুজন কর্ণধারের একজন শাবনূর। আরেকজন তারই ছোট বোন ঝুমুর। স্কুল পরিচালনা নিয়েও শাবনূরের রয়েছে যথেষ্ট ব্যস্ততা।

শাবনূর বলেন, আল্লাহর রহমতে চলচ্চিত্রে এখনো যথেষ্ট সম্মান নিয়েই আছি আমি। অভিনয় জীবনের পথচলায় আমার প্রত্যেক চলচ্চিত্রের পরিচালক, প্রযোজক, সিনেমাটোগ্রাফার, কাহিনীকার, প্রোডাকশন বয়, ট্রলিম্যান থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। বিশেষ করে আমার বোন ঝুমুরের কথা উল্লেখ করতেই হয়।

সবারই সহযোগিতায় আমি আজকের শাবনূর। চলচ্চিত্রের সবাইকে নিয়ে আমি সামনের দিনগুলোতেও ভালো থাকতে চাই। মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘দুই নয়নের আলো’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ২০০৫ সালে তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন। একই পরিচালকের ‘এতো প্রেম এত মায়া’ নামের নতুন চলচ্চিত্রে প্লে-ব্যাক করেছেন শাবনূর।

শিগগিরই এ চলচ্চিত্রের শুটিংয়ে অংশ নেওয়ার মাধ্যমে নতুন কাজে দর্শক তাকে বড় পর্দায় আবারো দেখতে পাবেন বলেও জানান তিনি। ঢাকার প্রেক্ষাগৃহে শাবনূর অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিটি হচ্ছে মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘কিছু আশা কিছু ভালোবাসা’।

সবশেষ গত বছর শাবনূর দু’ধাপে অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফিরে ফেরার পর ‘ইউরো স্টার’ নামে একটি কোম্পানির চুলার বিজ্ঞাপনচিত্রে মডেল হিসেবে কাজ করেন। এটি নির্দেশনা দেন আহমেদ ইলিয়াস।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য