দিনাজপুর সংবাদাতাঃ বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক মহাজোট দিনাজপুরের নেতারা বেতন বৈষম্য দুরীকরনের এক দফা বাস্তবায়নের লক্ষে কেন্দ্রীয় কর্মসুচীর সাথে একাত্বতা ঘোষনা করেছে । দাবী বাস্তবায়ন না হলে আগামী ২৩ ডিসেম্বর হতে আমরন অনশনে তারাও যোগ দেবে।

শুক্রবার দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সকাল ১১টায় এবং বিকাল ৪টায় পৃথক ভাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক মহাজোট দিনাজপুরের দুই অংশের নেতৃবৃন্দ। সকাল ও বিকেলে যথাক্রমে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সাধারন সম্পাদক মোঃ সাখাওয়াত হোসেন এবং সভাপতি মোঃ গোলাম ফারুক। তাদের পাঠ করা লিখিত বক্তব্যে একই দাবী উঠে এসেছে।

তারা বলেছেন,দেশের প্রায় সাড়ে ৩ লাখ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক প্রাথমিক শিক্ষার গুনগত মানোন্ন্য়নে নিষ্ঠা ও াান্তরিকতার সাথে কাজ করছে অথচ ২০১৫ সালে শত ভাগ বেতন বৃদ্ধি করা হলেও সহকারী শিক্ষকরা চরম বৈষম্যের শিকার হয়েছে। ২০১৪ সালের ৯ মার্চ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনায় প্রধান শিক্ষক পদ দ্বিতীয় শ্রেনীতে উন্নীত করায় প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের মাঝে বেতনের পার্থক্য ৩ ধাপ নীচে হয় যা ২০০৬ সালে ছিল এক ধাপ নিচে। আর বর্তমান প্রস্তাবিত প্রধান শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড বাস্তবায়ন হলে ওই বৈষম্য হবে ৪র্থ ধাপ নিচে। এতে কওে সহকারী শিক্ষকরা শ্রেনীগত বৈষম্যেও পাশাপাশি আর্থিক বৈষম্যেও শিকার হবে।

সংবাদ সম্মেলনে তারা আরো বলেন, ২য় শ্রেনীর মর্যাদায় ১১তম গ্রেডে প্রশিক্ষন প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বেতন হচ্ছে ১২ হাজার ৫শত টাকা আর প্রশিক্ষনবিহীন ১২তম গ্রেড ১১ হাজার ৩ শত টাকা। ৩য় শ্রেনীর মর্যাদায় সহকারী ১৪তম গ্রেডে প্রশিক্ষন প্রাপ্ত ১০,২০০ টাকা আর ১৫তম গ্রেডে প্রশিক্ষনবিহীন ৯ হাজার ৭০০ টাকা। এখানে প্রথম বৈষম্য হচ্ছে শ্রেনীগত প্রধান শিক্ষক দ্বিতীয় শ্রেনী আর সহকারী শিক্ষক ৩য় শ্রেনী। দ্বিতীয়ত হচ্ছে বেতন বৈষম্য প্রধান শিক্ষকরা পাচ্ছেন ১২ হাজার ৫ শত টাকা আর প্রশিক্ষন প্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকরা পাচ্ছেন ১৪তম গ্রেড অনুযায়ী ১০ হাজার ২ শত টাকা। এভাবেই প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে বেতন বৈষম্য আর্থিক পার্থক্য অর্ধেকে নেমে আসবে কখনোই বৈষম্য ব্যতিত আর্থিক সমন্বয় আসবে না।

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক নেতৃবৃন্দরা জানান,সারাদেশের ৩ লাখ ৫০ হাজার শিক্ষকের মধ্যে দিনাজপুরের ১ হাজার ৮৫৪টি বিদ্যালয়ের ১১ হাজার ৩৫৪ জন শিক্ষকও বেতন বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। আমাদের একটাই দাবী প্রধান শিক্ষকের পরের ধাপেই সহকারী শিক্ষকদের বেতন দিতে হবে এই দাবী আগামী ২২ ডিসেম্বরের মধ্যে মানা না হলে শিক্ষকেরা ২৩ ডিসেম্বর হতে আমরন অনশন শুরু করবে।

সকালের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক মহাজোট দিনাজপুরের সভাপতি মোঃ জুলফিকার আলী(একাংশ) মমিনুল ইসলাম,রবিউল ইসলাম বাবুল,লতিফুর রহমান,শফিকুল ইসলাম,মিজানুর রহমান,বিকালে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ,সাধারন সম্পদক মোঃ আব্দুল লতিফ(একাংশ), মোঃ তৌফিকুল ইসলাম,মোঃ মোস্তফা হিরা,মোঃ নিয়ামুল ইসলাম,মোঃ নওশাদ আলী,এটিএম মিরাজ আলী হায়দার,মোঃ ওমর ফারুক,মোঃ মেরাজুল ইসলাম,নাজমুল হুদা লিটন,মোঃ মামুনুর রশীদ ও বেনজীর হক।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য