রক্ষণশীলদের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত আলাবামা অঙ্গরাজ্যের সিনেটে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থীর পরাজয়ের পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলছেন, রয় মুরের হার প্রমাণ করেছে তিনিই সঠিক ছিলেন।

মঙ্গলবারের নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর মুরকে হারিয়ে ২৫ বছরের মধ্যে প্রথম কোনো ডেমোক্রেট হিসেবে আলাবামা থেকে সিনেটে যাচ্ছেন ডগ জোনস।

তার এই জয় মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে রিপাবলিকান আধিপত্য আরও কমিয়ে আনবে, যা নতুন কোনো আইন পাসের ক্ষেত্রে ট্রাম্পকে সমস্যায় ফেলতে পারে বলে ধারণা বিশ্লেষকদের।

সমকামিতা ও মুসলমানদের নিয়ে উল্টোপাল্টা মন্তব্য আর নির্বাচনী প্রচারের সময় ওঠা যৌন হয়রানির অভিযোগ মুরের জনসমর্থন কমিয়ে দিয়েছে বলে ধারণা মার্কিন গণমাধ্যমগুলোর।

মুরের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা বেশ কয়েকজন নারী জানান, কিশোরী বয়সেই তারা এ রিপাবলিকান প্রার্থীর কাছে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছিলেন।

জাতীয় পর্যায়েও আলোড়ন তোলা এসব অভিযোগের কারণে প্রভাবশালী অনেক রিপাবলিকানও মুরকে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছিলেন, যদিও ট্রাম্পের সমর্থনে শেষ পর্যন্ত লড়ে যান আলাবামার সুপ্রিম কোর্টের সাবেক এ বিচারপতি।

ভোটের আগে মুরকে সমর্থন জানিয়ে ট্রাম্পের রেকর্ডিং করা একটি বার্তাও ভোটারদের কাছে পাঠানো হয় বলে বিবিসি জানিয়েছে।

যদিও ফল ঘোষণার পরপরই ডেমোক্রেট প্রার্থীকে অভিনন্দন জানিয়ে টুইট করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। টুইটে এও মনে করিয়ে দিয়েছেন, মুরকে নয় দলীয় প্রাইমারিতে লুথার স্ট্রেঞ্জকে সমর্থন দিয়েছিলেন তিনি।

“গত রাতের নির্বাচন যদি কিছু প্রমাণ করে, তা হলো- হাউজ (মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ) ও সিনেটে ব্যবধান বাড়াতে আমাদের উচিত অসাধারণ রিপাবলিকান প্রার্থীদের মনোনয়ন দেওয়া,” বলেন ট্রাম্প।

চলতি বছরের শুরুতে জেফ সেশনস মার্কিন অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর তার ছেড়ে দেওয়া সিনেট আসনে এ বিশেষ নির্বাচন হয়। এ নির্বাচনে রিপাবলিকান মুরকে প্রত্যাখ্যান করে আলাবামার ভোটাররা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে শক্ত বার্তা দিলেন বলে ধারণা পর্যবেক্ষকদের।

১৯৬৩ সালে বার্মিংহামে কৃষ্ণাঙ্গদের গির্জায় বোমা হামলা চালানো উগ্রবাদী সংগঠন কু ক্লুক্স ক্ল্যানের দুই সদস্যকে বিচারের মুখোমুখি করায় কৃতিত্বের দাবিদার ৬৩ বছর বয়সী জোনস।

সাবেক এ আইনজীবী এর আগে কখনোই নির্বাচিত কোনো পদে ছিলেন না।

বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে জোনস জানান, ফল জানার পর ট্রাম্প তাকে ফোন করেছেন এবং হোয়াইট হাউজে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

সিনেটে ডেমোক্রেট দলের নেতা চাক শুমার এবং রিপাবলিকান নেতা মিচ ম্যাককনেলও ফোনে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

ডেমোক্রেট এ প্রার্থী ভোটের ৪৯ দশমিক ৯ শতাংশ পেয়েছেন বলে গণনা শেষে দেখা গেছে। রিপাবলিকান প্রার্থী পেয়েছেন ৪৮ দশমিক ৪ শতাংশ।

৭০ বছর বয়সী মুর এখনো পরাজয় মেনে নেন নি। ব্যবধান কম হওয়ায় তিনি ভোট পুনঃগণনার দাবি তুলতে পারেন বলেও ধারণা করা হচ্ছে।

দুই প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোটের ব্যবধান আধা শতাংশের বেশি হওয়ায় পুনরায় গণনার সম্ভাবনা কমে এলেও আলাবামা অঙ্গরাজ্যের সেক্রেটারি জন মেরিল ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেছেন, লিখিত ভোট পর্যালোচনা ও প্রবাসীদের দেওয়া ভোটের পরিমাণ যদি ব্যবধান আধা শতাংশের নিচে নামিয়ে আনে তাহলে পুনঃগণনার আদেশ দেওয়া হবে।

ব্যবধান আধা শতাংশের বেশি হওয়ার পরও যে কোনো প্রার্থী নতুন করে গণনার আবেদন জানাতে পারবেন, এক্ষেত্রে তাকেই সব খরচ বহন করতে হবে।

বিজয়ী হলেও এখনই সিনেটে বসতে পারছেন না জোনস। সেশনস আসন ছেড়ে দেওয়ার পর তার জায়গায় অস্থায়ী ভিত্তিতে রিপাবলিকান পার্টির মনোনয়ন পেয়েছিলেন লুথার স্ট্রেঞ্জ; জানুয়ারি পর্যন্ত তিনিই সিনেটে আলাবামার প্রতিনিধিত্ব করবেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য