নীলফামারীর ডিমলায় জাহিদ হোসেন (৭) নামে শিশুকে হত্যার পর লিচু বাগানে ফেলে দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট গ্রামের শ্বশানের ঘাটে শিশুটির লাশ দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে সংবাদ দেয়। সে বালাপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিন সুন্দরখাতা গ্রামের আসাদ আলীর পুত্র। ছোটবেলা থেকে জাহিদ তার মামা আলিমুদ্দিনের বাড়ীতে থাকত।

সোমবার সন্ধ্যায জাহিদ মামার বাড়ী থেকে নিখোঁজ হয়। শিশুটির নানী আলিমন নেছা শিশুটিকে খুজতে বিভিন্ন স্থানে গেলেও তার কোন খোঁজ খবর না পেয়ে বাড়ীতে চলে আসে। সকালে পাশ্ববর্তী লিচু বাগানে লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয় লোকজন পরিবারে সংবাদ দেয়।

জানা যায় ৫ বছর পূর্বে আসাদকে তালাক দিয়ে পুনঃরায় শিশুটির মা জুলেখা বেগম ৩ বছর পূর্বে পাশ্ববর্তী আলমগীরকে বিয়ে করেন। ঘটনাটি রহস্যজনক হওয়ায় সকাল থেকে পুলিশ ঘটনাস্থলে তদন্ত করছে।

লাশটি উদ্ধার করে জেলার মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার, ডিমলা থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনসহ পুলিশ ঘটনাস্থলে রয়েছে। পুলিশ জানায় প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে শিশুটিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য