গো খাদ্যের অসম্ভব মূল্য বৃদ্ধি ও পোয়াল(খর) এর চরম অভাব দেখা দেয়ায় রংপুরের কাউনিয়ায় গরুর বাজার মূল্যে ধ্বস নেমেছে ফলে উপজেলার হাট বাজার গুলোতে প্রতি কেজি গরুর মাংশ বিক্রী হচ্ছে মাত্র ৩২০ টাকায়। এক মাস আগেও যেখানে প্রতি কেজি গরুর মাংশ বিক্রী হতো ৪৮০ থেকে ৪৯০ টাকা। মজার ব্যাপার হচ্ছে উপজেলার প্রায় সর্বত্রই এখন গরুর মাংশ বিক্রীর জন্য দিনভর মাইকিং করা হচ্ছে।

হটাৎ করে গরুর দাম কমে যাওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান গরু খামারী উপজেলার বনগ্রাম গ্রামের গোপাল চন্দ্র। তিনি জানান যে গরুটির মূল্য গত এক মাস আগেও ৭০ হাজার টাকা ছিলো সেটির এখনকার বাজার মূল্য ৫০ হাজার থেকে ৫৫ হাজার টাকার এর বেশী নয়। আর সে কারনেই গরুর মাংশের দাম কেজি প্রতি প্রায় দু’শ টাকা কমে গেছে।

কারন হিসেবে তিনি জানান গত বন্যায় উপজেলার অনেক গুলো এলাকায় বন্যা হয় আর সে কারনে ওই এলাকার গরু খামারীদের স্টক করা গো খাদ্য সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যায়। তা ছাড়া হঠাৎ করে গরুর ফিড জাতীয় খাবারের মূল্য অসাভাবিক ভাবে বেড়ে যাওয়ায় উপজেলার ২২ টি চরাঞ্চলের গরু চাষীরা তাদের গরু বিক্রী করে দিচ্ছেন।

গরু ব্যবসায়ী মজিবর রহমান জানান কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাট জেলার চরাঞ্চলের গরু খামারীদের গরু কাউনিয়া উপজেলায় সব সময় আসে তবে এখন একটু বেশী পরিমানে গরু আসার কারনে কাউনিয়া উপজেলায় গরুর দাম পড়ে যাওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তা ছাড়া বর্তমানে কাউনিয়ার হাট বাজার গুলোতে দেশের অন্য এলাকা থেকে গরু ক্রেতা না আসায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি জানান অলপ কিছু দিনের মধ্যে গরুর প্রধান খাবার খর কৃষকের ঘরে আসবে তখন গরুর বাজারের এ অচল অবস্থার উন্নতি হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য