মুসলিম ব্রাদারহুডের সঙ্গে সম্পর্ক থাকার অভিযোগে ১৪ ব্যক্তির সম্পদ বাজেয়াপ্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মিসর। এই ব্যক্তিরা ব্রাদারহুডের নেতৃস্থানীয় কেউ নন। তবে তাদের স্বজনরা দলটির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। তাদের স্থাবর, অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। শনিবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট মনিটর।

প্রতিবেদনে বলা হয়, স্থাবর, অস্থাবর সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা ছাড়াও এই ব্যক্তিদের ব্যাংকিং সেবা গ্রহণের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে কর্তৃপক্ষ। ফলে তাদের কোনও ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সুযোগ থাকছে না। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আওতাধীন যে কোনও আর্থিক সেবার ক্ষেত্রেই এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে।

২০১২ সালের ৩০ জুন মিসরের প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণের এক বছরের মাথায় ক্ষমতাচ্যুত হন মুসলিম ব্রাদারহুড নেতা মোহাম্মদ মুরসি। ২০১৩ সালের ৩ জুলাই সেনা অভ্যুত্থানের মাধ্যমে মুরসিকে সরিয়ে ক্ষমতা দখল করেন সেনাপ্রধান জেনারেল সিসি। সেনাবাহিনীর ওই অভ্যুত্থানে সমর্থন দেয় ইসরায়েল, সৌদি আরব ও আরব আমিরাত। সেনাবাহিনী ক্ষমতা দখলের পর মিসরে ব্রাদারহুডকে নিষিদ্ধ করা হয়। গ্রেফতার করা হয় কয়েক হাজার মুরসি সমর্থককে। মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয় ৯১৭ জনকে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য