দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে বাজারের নৈশ প্রহরীকে বেঁধে রেখে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। গত রবিবার দিবাগত রাত আনুমানিক ২ টার দিকে উপজেলার দলার দরগা বাজারের মেসার্স কৃষি বিতান নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ওই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। প্রতিষ্ঠানটি সিনজেনটা কোম্পানীর পরিবেশক।

বাজারে নৈশ প্রহরী মোকলেছুর রহমান জানান গত রবিবার দিবাগত রাতে তার দায়িত্ব পালন করার সময় রাত আনুমানিক ২টার দিকে দেশীয় অস্ত্র হাতে হাফ প্যান্ট ও মূখোশ পরা ১৬/১৭ জনের একটি ডাকাত দল তাকে আটক করে। এরপর তার ব্যবহৃত মামলার কেটে তিন টুকরা করে মুখ,হাত ও পা বেঁধে তাকে পার্শ্বে ধান ক্ষেতে ফেলে রেখে মেসার্স কৃষি বিতান নামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তালা ভেঙ্গে ডাকাতি করতে থাকে।

কিছুক্ষন পর তার অপর সহযোগী নৈশ প্রহরী রেজাউল তার খোঁজ করতে থাকে। কিন্তু কোন সাড়া না পেয়ে সে সামনের দিকে অগ্রসর হতে থাকে। সে সামনের দিকে যেতেই উপরোক্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে মূখোশধারী ডাকাত দলকে দেখতে পেয়ে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার করতে করতে বাজারের প্রধান সড়কে দিকে দৌড়াতে থাকে। তার চিৎকারে বাজারেই থাকা টহল পুলিশ ও স্থানীয় দোকানীরা আগাতে থাকলে ডাকাত দল সটকে পড়ে।

ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মলিক হুমায়ুন কবিরের বড় ভাই মিলন জানান ডাকাতেরা তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ডাকাতিকালে ফাইল কেবিনেট সহ সব টেবিলের ড্রয়ার ভেঙ্গে তছনছ করেছে। নিয়ে গেছে প্রায় ১৫ লাখ টাকার মালামাল। এরমধ্যে অল্প কিছু মালামাল পরের দিন অর্থাৎ গতকাল সোমবার সকালে ধান ক্ষেত থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

ওই প্রতিষ্ঠানে ডাকাতি কালে ঢাকা থেকে বাড়ী ফেরা কোচ যাত্রী বেড়ামালিয়া গ্রামের ধিরেনের ছেলে কানড়ার ডাকাতেদের কবলে পড়ে মিষ্টির প্যাকেট,মোবাইল ফোন ও নগদ টাকা খোয়া গেছে। এ ব্যাপারে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক হুমায়ুন কবির থানায় অভিযোগ করবেন বলে জানান। নবাবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ সুব্রত কুমার সরকার জানান তিনি খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অভিযোগ দায়ের হয় নাই। তবে হবে। উল্লেখ্য এলাকায় সম্প্রতি চুরির ঘটনাও বেড়েছে। গত ২৫ নভেম্বর দিবাগত রাতে পুটিমারা ইউনিয়নের পরিবার কল্যান কেন্দ্রের ভিতর থেকে সোলারের একটি ব্যাটারী চুরি হয়েছে। একই রাতে চুরি হয়েছে বড় তেঁতুলিয়া গ্রামের সাবেক ইউ,পি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলামের(বেলাল) গভীর নলকুপের বৈদ্যুতিক মিটার।

এরপূর্বে ৩ নভেম্বর রাতে গভীর নলকুপের বৈদ্যুতিক মিটার চুরি হয়েছে বড় তেঁতুলিয়া গ্রামের তোতা মিয়ার বলে খবর পাওয়া গেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য