দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দনাজপুরে বাস পোড়ানো ও শ্রমিকদের উপর হামলার ঘটনায় হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) প্রক্টর প্রফেসর খালিদ হোসেন, সহকারী প্রক্টর সৌরভ পাল চৌধুরী, ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক প্রফেসর শাহাদৎ হোসেন খানসহ ১২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ১৫০ জনকে আসামী করে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় দুটি পৃথক মামলা দায়ের করেছে দিনাজপুর মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন ও দিনাজপুর জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপ।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে দায়ের কৃত এই মামলা দুটির মধ্যে একটির বাদী হয়েছেন দিনাজপুর মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি সাইফুর রাজ চৌধুরী এবং অপরটির বাদী হয়েছেন দিনাজপুর জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলাম সেলু।

দিনাজপুর কোতয়ালী থানা সুত্রে জানাযায়, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বুধবার রাতে ২টি বাসে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় দিনাজপুর জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম শেলু বাদী হয়ে হাবিপ্রবি’র প্রক্টর ড. খালিদ হোসেন, সহকারী প্রক্টর সৌরভ পাল চৌধুরী, ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক প্রফেসর শাহাদৎ হোসেন খানসহ ১২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ১৫০ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং- ১২০।

এদিকে শ্রমিকদের উপর হামলা ও মারপিটের ঘটনায় দিনাজপুর মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি সাইফুর রাজ চৌধুরী বাদী হয়ে হাবিপ্রবি’র প্রক্টর ড. খালিদ হোসেন, সহকারী প্রক্টর সৌরভ পাল চৌধুরী, ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক প্রফেসর শাহাদৎ হোসেন খানসহ ১২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৫০ জনকে আসামী করে অপর একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং-১১৯। দিনাজপুর কোতয়ালী থানার ওসি রেদওয়ানুর রহিম থানায় দুটি মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে হাবিপ্রবি’র প্রক্টর প্রফেসর খালিদ হোসেন জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকেও শ্রমিকদের বিরুদ্ধে একটি পাল্টা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তারা থানায় মামলা দায়ের করতে আসেনি।

উল্লেখ্য, গত বুধবার সন্ধ্যা সোয়া ৬ টার দিকে দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের বহন করা একটি বাসের সাথে তৃপ্তি পরিবহন নামে একটি বাসের সাইড দেয়াকে কেন্দ্র করে শ্রমিকদের সাথে ছাত্রদের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ছাত্ররা এসে মোটর পরিবহন শ্রমিকদের মারধর করে ও বাস ভাংচুর করে। এ সময় শ্রমিকরাও পাল্টা আক্রমণ করে, এতে ২ শিক্ষার্থী ও ৩ শ্রমিক আহত হয়। আহত হাবিপ্রবি’র ছাত্র নিবিড় ও সৌরভ এবং মোটর পরিবহন শ্রমিক ভোলা, তুহিন ও আফজালকে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
এই ঘটনার পর দিনাজপুর হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের সামনে রাস্তায় বাঁশ ফেলে ও টায়ার জ্বালিয়ে দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে। এ সময় তারা তৃপ্তি পরিবহন ও শাহী পরিবহন নামে দুটি বাস জ্বালিয়ে দেয়।

এই ঘটনার পর থেকেই দিনাজপুর মোটর পরিবহন শ্রমিক ও দিনাজপুর সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপ অনির্দিষ্টকালের জন্য সর্বাত্মক পরিবহন ধর্মঘট আহ্বান করে এবং হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা ক্যাম্পাসের সামনে দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে।

নিরসনে বৃহস্পতিবার বিকেলে দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম তার সভাকক্ষে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং দিনাজপুর মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন ও জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের নেতৃবৃন্দরে নিয়ে এক সমঝোতা বৈঠকে বসেন। কিন্তু দুপুর দেড়টা থেকে টানা আড়াই ঘন্টার বৈঠকেও কোন সুরাহা হয়নি। এরপর রাতে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক পক্ষ কোতয়ালী থানায় দুটি মামলা দায়ের করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য