স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে দুটি নতুন ওষুধের অনুমোদন দিয়েছে ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস বা এনএইচএস।

ক্যান্সার প্রতিরোধে এই প্রতিষেধককে ‘যুগান্তকারী’ হিসেবে বলা হচ্ছে। যা চিকিৎসার সবশেষ ধাপ হিসেবে ব্যবহৃত হবে।

গবেষকরা বলছেন, এটি ক্যান্সার প্রতিরোধে কার্যকরী হিসেবে কাজ করবে। ইংল্যান্ডে অন্তত আট হাজার নারী এই ওষুধের সেবা পাবেন।

দেশটিতে প্রতিবছর ৪৫ হাজার মানুষ স্তন ক্যান্সারের চিকিৎসা নেন।

গবেষক, চিকিৎসক প্রফেসার নিকোলাস টার্নার বলেছেন, অনেক গবেষণার মধ্য দিয়ে এটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। যা চিকিসার শেষ দুটি ধাপ হিসেবে বিবেচিত হবে। এটি জীবন বাঁচাবে এবং পরবর্তী দীর্ঘ জীবনের নিশ্চয়তা দেবে বলে আশা রাখি।

এদিকে নারীদের মধ্যে স্তন ক্যান্সারের প্রবণতা দিন দিন বাড়ছে। ভারতীয় একটি গবেষণায় জানা গেছে, প্রতি আটজন নারীর মধ্যে একজন স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, স্তন ক্যান্সারের সঙ্গে যে স্টিগমা যুক্ত থাকে তা নির্ণয় করতে কখনও কখনও দেরি হয়ে যায়। ফলে রোগীর জীবন বিপন্ন হয়ে পড়ে। একপ্রকার বাধ্য হয়েই রোগীকে স্তন দেহ থেকে বাদ দিতে হয়।

স্তন ক্যান্সারের প্রথম লক্ষণ লাম্প হওয়া। এর কারণে আকার ও ত্বকের গঠনে প্রভাব পড়ে। ব়্যাশ হয়। স্তনবৃন্তে অস্বাভাবিকত্ব লক্ষ্য করা যায়। এগুলো দেখা গেলে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে বলেছেন বিশেষজ্ঞরা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য