দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী প্রসূন আজাদ। গত বছর অক্টোবরে অভিনেত্রী ও নির্মাতা রোকেয়া প্রাচীর অভিযোগের ভিত্তিতে প্রযোজক ও অভিনয়শিল্পী সংগঠনের সম্মতিতে পরিচালকদের সংগঠন ডিরেক্টরস গিল্ড এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে তাকে। এক বছর পর আবারো তিনি অভিনয়ে ফিরেছেন।

এরইমধ্যে প্রসূন কাজ শুরু করেছেন বলেও জানান। সম্প্রতি তিনি রহমতুল্লাহ তুহীনের ‘যখন কখনো’ শীর্ষক একটি ধারাবাহিক নাটকে কাজ করেছেন। দীর্ঘদিন পর অভিনয়ে ফিরে কেমন লাগছে? এই প্রশ্নের উত্তরে প্রসূন বলেন, প্রথমে কিছুটা নার্ভাস ছিলাম।

সবাই আমাকে কীভাবে নেবে- এই চিন্তা ছিল। কিন্তু কাজে ফেরার পর দেখছি আমার ব্যাপারে সবাই আন্তরিক। কাজের সময় অনেক সহযোগিতা করছে। আমিও নতুনভাবে কাজ করার জন্য উৎসাহ পাচ্ছি। সবাই আমার পাশে থাকলে আগামীদিনে অনেক ভালো কাজ করতে পারবো বলে আমি বিশ্বাস করি।

এই সময়ে এসে কাজের ব্যস্ততা কেমন? প্রসূন বলেন, কণ্ঠশিল্পী মুনের ‘জীবনের হিসেব’ শীর্ষক একটি গানের মিউজিক ভিডিওতে মডেল হিসেবে কাজ করেছি। খুব শিগগিরই দর্শকরা এই মিউজিক ভিডিওটি দেখতে পাবে। এ ছাড়া হাতে কিছু নাটকের কাজ রয়েছে। চলতি মাসে সেই কাজগুলোর শিডিউল দিয়ে রেখেছি। এরইমধ্যে অনেক নির্মাতাও কাজের জন্য যোগাযোগ করেছেন। আমি ভালো-গল্প ও চরিত্রের কাজগুলো করতে চাই।

ছোট পর্দার পাশাপাশি প্রসূন বড় পর্দায়ও অভিনয় করছেন। বর্তমানে তার হাতে ‘ভোলা’ নামে একটি চলচ্চিত্রের কাজ রয়েছে বলে জানান। এই ছবিতে তিনি জুটি বেঁধেছেন দর্শকপ্রিয় অভিনেতা বাপ্পির সঙ্গে। ছবিটি পরিচালনা করছেন শফিকুল ইসলাম সোহেল। এ প্রসঙ্গে প্রসূন বলেন, এই ছবির গানগুলোর দৃশ্যধারণ বাকি আছে। অন্য সব কাজ শেষ হয়েছে। আমার অন্য ছবিগুলোর মতো এই ছবিটিও দর্শকরা গ্রহণ করবে বলে আশা করছি।

প্রসূনের এক বছরের নিষিদ্ধ হওয়া শেষ হতেই বর্তমানে পারিবারিক ঝামেলা চলছে তার। স্বামীর পক্ষ থেকে ডিভোর্স লেটার পাঠানো হয়েছে তাকে। এসবের মধ্যে অভিনয়ে নিয়মিত থাকতে চান কি না, জানতে চাইলে প্রসূন বলেন, আমি লাইট-ক্যামেরা দেখলে সাহস পাই। অভিনয় ছেড়ে আমি থাকতে পারবো না। চলার পথে যত বিপত্তিই আসুক, অভিনয়ে আমি আছি এবং থাকবো। ছোট পর্দা কিংবা চলচ্চিত্র, যেকোনো একটিতে আমি নিয়মিত অভিনয় করতে চাই।

ভবিষ্যৎ বলে দেবে, কোন মাধ্যমে দর্শকরা আমাকে সব সময় দেখবে। তিনি আরো বলেন, গেল এক বছরে আমি অভিনয় রপ্ত করেছি। আগে অনেক দুর্বল ছিলাম। সেই বিষয়টি কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি। বর্তমান সময়ে শোবিজে টিকে থাকার প্রতিযোগিতা চলছে। চলচ্চিত্র কিংবা ছোট পর্দা দুই মাধ্যমেই এই প্রতিযোগিতা দেখা যায়। টিকে থাকার জন্য প্রসূন কতটুকু প্রস্তুত আছেন? এই প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অভিনয়কে ভালোবাসেন বলেই জানান তিনি।

এ ছাড়া তিনি যে কাজটি জানেন, সেটি করতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন বলে তার ভাষ্য। প্রসূন বলেন, প্রতিযোগিতার মধ্যদিয়ে প্রকৃত শিল্পী বের হয়ে আসবে। প্রতিযোগিতা না থাকলে ভালো কাজ হয় না। তবে এই ক্ষেত্রে আমার নির্দিষ্ট কারো সঙ্গে প্রতিযোগিতা নেই। আমি নিজের সঙ্গে নিজেই প্রতিযোগিতা করি। এদিকে সম্প্রতি প্রসূন আজাদের ডিভোর্সের সংবাদ প্রকাশ হয়েছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে।

২০১৬ সালের ১৯শে ফেব্রুয়ারি অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে তার বিয়ে হয়। বর অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী মোহাইমিন সান। পরিবারকে না জানিয়েই তাদের বিয়ে হয়। ডিভোর্সের বিষয়টি গণমাধ্যমে আসলেও বিয়ের বিষয়টি গণমাধ্যমে আসেনি গুরুত্বসহকারে। ডিভোর্স প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রসূন বলেন, আগামি ফেব্রুয়ারিতে ডিভোর্সের বিষয়টি সম্পর্কে আমি পরিষ্কারভাবে বলতে পারবো।

তবে আমি কখনোই ডিভোর্সের পক্ষে নই। আমি চাই সুন্দরভাবে সংসার করতে। এরপরেও যদি ডিভোর্স হয়ে থাকে, তাহলে আমার কিছু করার নেই। তবে এটি সত্যি, আমার দিক থেকে ডিভোর্স হচ্ছে না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য