ফিলিস্তিনের সঙ্গে প্রক্রিয়া এগিয়ে নিতে ইসরায়েল আগ্রহী নয় বলে অভিযোগ করেছেন সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি। ইসরায়েলি টেলিভিশন ‘চ্যানেল ১০’ এ প্রচারিত এক রেকর্ডিংয়ের বরাত দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের সংবাদ পর্যবেক্ষণের ব্রিটিশ সংস্থা মিডল ইস্ট মনিটর একথা জানায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কেরি ইসরায়েলি উস্কানির পরও ধৈর্য ধরে সহিংতার পথ বেছে না নেওয়ায় কেরি ফিলিস্তিনিদের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ‘ফিলিস্তিনিরা সহিংসতায় যুক্ত না হয়ে দারুণ কাজ করেছে। এমনকি ২০১৫ সালে পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের হামলার পরও তারা শান্ত থেকেছে। তবে ইসরায়েলি জনগণ তা খেয়াল করেনি কারণ এটা আলোচনার বিষয় ছিল না। কারণ বর্তমান ইসরায়েলি সরকারের মন্ত্রিসভার বেশির ভাগ সদস্যই ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের পক্ষে নয় বলে প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়েছেন।’

ইসরায়েলের নিরাপত্তার নামে নেয়া উদ্যোগগুলো ইসরায়েলিদের অধিকার রক্ষা বা ফিলিস্তিনি সংগ্রামকে নাগরিক অধিকার আন্দোলনে পরিবর্তনের ক্ষেত্রে কোনও ফল দেয়নি বলে ইঙ্গিত সাবেক মার্কিন মন্ত্রী।

জর্ডান বিমানবন্দরে ইসরায়েলি সেনা মোতায়েনে বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা ইসরায়েলের হুমকি মোকাবিলায় পশ্চিম তীরেও আগেই অস্ত্র মোতায়েন করেছিলাম।’

ফিলিস্তিনি পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করে কেরি বলেন, ‘যদি দেখেন ৪০ হাজার শিশু প্রতিদিন দেয়ালের কাছে এসে তাদের অধিকারের দাবি জানায় তাহলে তারা সব সময় নাগরিক অধিকার আন্দোলন থেকে মুখ ফিরিয়ে থাকবে বলে আমি মনে করি না। তবে ইসরায়েল বিষয়টি অবহেলা করছে। এটা কখনও নেতৃত্ব হতে পারে না ।’

এ অবস্থার পরিবর্তন না হলে ১০ বছরের মধ্যে তরুণ ফিলিস্তিনি নেতারা দাবি করবে তারা ৩০ বছর ধরে সহিংসতা না করলেও তাতে কাজ হয়নি। এমন না হলেই তিনি বিস্মিত হবেন বলে জানান। ইহুদি বসতি স্থাপন বন্ধ করতে ইসরায়েলের অনীহার কারণে মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে গত বছরের ডিসেম্বর মাসে সতর্ক করেছিলেন জন কেরি। সেই ধারাবাহিকতায় তিনি এবারের মন্তব্য করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য