সামরিক অভিযান থেকে সরে সিরিয়া সঙ্কটের রাজনৈতিক সমাধান খোঁজার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে বৈঠক করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

সোমবার রাশিয়ার কৃষ্ণসাগর তীরবর্তী শহর সোচিতে দুই নেতার মধ্যে বৈঠকটি হয় বলে জানিয়েছে ক্রেমলিন।

পরে আসাদের সঙ্গে আলোচনার অগ্রগতি নিয়ে পুতিন টেলিফোনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও মধ্য প্রাচ্যের নেতাদের অবহিত করবেন বলেও ক্রেমলিন জানিয়েছে।

বুধবার সিরিয়া সঙ্কটের গুরুত্বপূর্ণ দুই অংশীদার ইরান ও তুরস্কের শীর্ষনেতাদের সঙ্গেও পুতিনের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

দুই বছর আগে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে আসাদের পক্ষ হয়ে অভিযান শুরুর পর সম্প্রতি সিরিয়ায় বিবদমান পক্ষগুলোর মধ্যে একটি শান্তিচুক্তি করতে আন্তর্জাতিক শক্তিগুলোকে এক করতে মস্কো কাজ করছে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

আসাদ তার দেশের বিদ্রোহীদের সঙ্গে আলোচনায়ও রাজি বলে রুশ গণমাধ্যমের খবরে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।

“সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে পুরোপুরি জয়ী হতে এখনও অনেকদূর যেতে হবে। কিন্তু সিরিয়ায় সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে আমাদের যৌথ কর্মকাণ্ড যতটা জরুরি, একইরকম জরুরি সামরিক অভিযানের সমাপ্তি টানাও,” বৈঠকে পুতিন আসাদকে এমনটাই বলেছেন বলে রুশ টেলিভিশনের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

“এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে রাজনৈতিক প্রশ্নে ফিরে যাওয়া। যারা শান্তি ও সঙ্কটের সমাধান চায় আপনি (আসাদ) তাদের সঙ্গে কাজ করতে প্রস্তুত, এটা জেনে আমি সন্তুষ্ট,” বলেন পুতিন।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভের বরাত দিয়ে রাশিয়ার বার্তা সংস্থা আরআইএ জানিয়েছে, পুতিনের সঙ্গে বৈঠক করতে কঠোর গোপনীয়তার মধ্যে রাশিয়ায় এসে চার ঘণ্টা অবস্থান করেন আসাদ।

এই সময়ের মধ্যেই সোচিতে দুই প্রেসিডেন্টের বৈঠক হয়, যেখানে রাশিয়ার সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

রাশিয়ার সংবাদ মাধ্যমে স্পুটনিক দুই নেতার বৈঠকের বেশ কয়েকটি ছবিও প্রকাশ করে, যেখানে দুই নেতাকে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলতে দেখা গেছে।

পুতিনের কৃষ্ণসাগর তীরবর্তী সোচির রিসোর্টে সোমবার সন্ধ্যায় বৈঠকটি হলেও মঙ্গলবারের আগে ক্রেমলিন বৈঠকটি সম্পর্কে কিছু জানায়নি।

বৈঠকে সিরিয়া নিয়ে একটি ‘শান্তি সম্মেলন’ করা যায় কি না, তা নিয়েও দুই নেতার আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছে ক্রেমলিন।

সোমবারের বৈঠকে আসাদ সিরিয়ার সঙ্কট সমাধানের চেষ্টায় রাশিয়ার সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানান।

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেন, “এই মুহুর্তে, বিশেষ করে যখন আমরা সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ জয় অর্জন করতে পেরেছি, এখন আমাদের নিজেদের স্বার্থেই রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার পথে অগ্রসর হওয়া উচিত। বর্তমান পরিস্থিতি ও অর্জিত রাজনৈতিক প্রজ্ঞাও আমাদেরকে ওই পথেই অগ্রসর হতে বলছে; এই প্রক্রিয়ায় বাইরের খেলোয়াড়রা যেন হস্তক্ষেপ না করতে পারে সেজন্য রাশিয়ার সহযোগিতাকে আমরা গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করছি।”

সিরিয়ায় মস্কোর বিমান অভিযান শুরুর পর ২০১৫ সালের ২০ অক্টোবর এই দুই নেতার মধ্যে সর্বশেষ বৈঠকটি হয়েছিল।

সিরিয়ার আসাদবিরোধী গোষ্ঠী ও পশ্চিমা দেশগুলো ওই বিমান হামলায় বিপুল সংখ্যক বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে বলে দাবি করলেও মস্কো তা উড়িয়ে দিয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য