গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫৮ প্রধান শিক্ষকসহ ৭০ শিক্ষকের পদ শুন্য রয়েছে। এতে করে ওই সব বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম মারাত্বক ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। জানা গেছে, দীর্ঘদিন থেকে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ বন্ধ থাকায় দিন দিন উপজেলায় প্রধান শিক্ষকের শুণ্য পদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের ভাড়ে ভারাক্রান্ত হয়ে পড়েছে ৫৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এদিকে অফিসের কাজে প্রতি নিয়ত প্রতিষ্ঠান প্রধানকে উপজেলা শহরে যেতে হয়।

এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সহকারি শিক্ষকরা নিজের ইচ্ছামত বিদ্যালয় পরিচালনা করে আসছেন। অনেক সহকারী শিক্ষক আর একজন সহকারি শিক্ষককে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে মেনে নিতে পারছেন না। এসব কারনে ওই সকল বিদ্যালয়ে চেইন অব কমান্ড ভেঙ্গে পড়ায় পাঠদান কার্যক্রম মারত্বক ভাবে বিঘিœত হচ্ছে। উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে অবসর এবং মুত্যু জনিত কারনে এসব প্রধান শিক্ষকের পদ শুণ্য হয়।

পরান বয়েজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অভিভাবক ফয়জার মিয়া জানান, প্রধান শিক্ষক না থাকায় ওই বিদ্যালয়ে অভিভাবক বা মা সমাবেশ কোনটাই হয় না। উপজেলা শিক্ষা অফিসার (চলতি দায়িত্ব) হারুন আর রশিদ জানান ,প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত শুন্য পদগুলো পুরুন করা সম্ভব হচ্ছে না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য