”নির্ধারিত সময়ের অর্থাৎ ৩৭ সপ্তাহের পূর্বে নবজাতকের জন্মপ্রতিরোধ বিষয়ে” -জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আয়োজনে রংপুরে বিশ্ব প্রিম্যাচুইরিটি দিবস-২০১৭ পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে রংপুরের ৬ উপজেলায় (মিঠাপুকুর, পীরগাছা, পীরগঞ্জ, কাউনিয়া, তাঁরাগঞ্জ ও গঙ্গাচড়া) র‌্যালী, আলোচনা সভা, মিডিয়া ব্রিফিং, রচনা প্রতিযোগিতা, নব দম্পতি সমাশে ও কুইজ প্রতিযোগিতা এবং পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সিভিল সার্জন রংপুর, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ও ল্যাম্ব এর সহযোগিতায় এবং গ্লোবাল এ্যাফেয়ার্স কানাডা ও জনসন এবং জনসন এর অর্থায়নে বাস্তবায়িত বর্ন অন টাইম প্রকল্প এর অধীনে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

দিনব্যাপী আয়োজনের শুরুতে রংপুর সিভিল সার্জন কার্যালয় হতে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী সিভিল সার্জনের অফিস চত্বর থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে সিভিল সার্জন হল রুম চত্বরে এসে শেষ হয়।

র‌্যালী শেষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সিভিল সার্জন করেন ডাঃ আবু মোঃ জাকিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ডাঃ মোঃ মোজাম্মেল হোসেন, বিভাগীয় পরিচালক, স্বাস্থ্য, রংপুর। আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডাঃ শেখ মোঃ সাইদুল ইসলাম, উপ-পরিচালক, পরিবার পরিকল্পনা, ডাঃ মোঃ আবদুল মোকাদ্দেম, ডেপুটি সিভিল সার্জন, ডাঃ হৃষিকেশ সরকার, প্রোগ্রাম ম্যানেজার, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ রংপুর ডিভিশনাল অফিস।

আলোচনা অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ,বাংলাদেশে নবজাতক মৃত্যুর প্রধানতম কারণ প্রি-টার্ম বার্থ (নির্ধারিত সময়ের পূর্বে নবজাতকের জন্ম) সর্ম্পকে আলোচনা করেন। প্রি-টার্ম বার্থ কিভাবে প্রতিরোধ করা যায় এর জন্য পরিবারের সদস্য, সমাজ, সরকার তথা রাষ্ট্রের কি দায়িত্ব রয়েছে এই বিষয়েও বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।

এতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন ও উপ-পরিচালক, পরিবার পরিকল্পনা, রংপুর। প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে এসডিজি এর অন্যতম দিক শিশু মৃত্যু হার হ্রাসকরণের লক্ষ্যে নির্ধারিত সময়ের পূর্বে নবজাতকের জন্ম প্রতিরোধ করার বিষয়ের উপর গুরুত্ব আরোপ করোর তাগিদ দেন। এ লক্ষ্যে প্রেিরাধমূলক ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য সকলের সহযোগীতা প্রয়োজন বলে তিনি মত প্রকাশ করেন। এ ব্যপারে তিনি সরকারী ও বেসরকারী সেবা প্রদানকারী সকলকে গুনগত সেবা প্রদানের জন্য নিষ্ঠার সাথে কাজ করতে আহ্বান জানান।

আলোচনা সভা শেষে মিডিয়া ব্রিফিংয়ের শুরুতেই ডাঃ সিদ্দিকা আরবিন, মেডিকেল অফিসার, সিভিল সার্জন অফিস রংপুর প্রিম্যাচুইরিটি বার্থ এবং বর্ন অন টাইম প্রকল্প সর্ম্পকে একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন।

উপস্থাপনায় বলা হয়, সবচেয়ে বেশী অপরিণত নবজাতক জন্ম নেয় এমন দশটি দেশের তালিকায় বাংলাদেশ সপ্তম। দেশে বছরে ৪, ২৪, ১০০ অপরিনত (অর্থাৎ ৩৭ সপ্তাহের পূর্বে ) নবজাতকের জন্ম হয়। যেখানে ১৪ শতাংশ নবজাতকের জন্ম হচ্ছে নির্ধারিত সময়ের অর্থাৎ ৩৭ সপ্তাহের পূর্বে। এদের ২২ শতাংশ কম জন্ম ওজন (২ হাজার ৫০০ গ্রামের কম) নিয়ে নিচ্ছে।

উপস্থাপনায় আরো বলা হয়, বিশ্বে প্রতি ১০ জনের মধ্যে ১ জন অপরিণত নবজাতকের জন্ম হয়। প্রায় ১৫ মিলিয়ন নবজাতকের জন্ম হয় ৩৭ সপ্তাহের পূর্বে। প্রতি বছর ১ মিলিয়নেরও বেশী নবজাতক নির্ধারিত সময়ের পূর্বে জন্ম সংক্রান্ত জটিলতার কারণে মারা যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য