আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যে এক বন্দুকধারীর গুলিতে চারজন নিহত ও তিন শিশুসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে ক্যালিফোর্নিয়ার র‍্যাঞ্চো টেহামা শহরের একটি স্কুল ও আশপাশের এলাকায় ওই হামলা চালানো হয়। হামলায় আহত সাতজনকে স্থানীয় কয়েকটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুই স্কুল শিক্ষার্থী ও বেশ কয়েকটি শিশু রয়েছে।

টেহামা অঞ্চলের পুলিশ কর্মকর্তা ফিল জনস্টন বলেন, হামলাকারী গুলি চালাতে চালাতে স্কুল থেকে বের হয় এবং আশপাশের এলাকায়ও গুলি চালায়। হামলাকারী এ সময় তার ব্যবহৃত গাড়িটি ভেঙে দিয়ে অপর একটি গাড়ি চুরি করে পালাতে গেলে পুলিশের গুলিতে নিহত হন। তবে প্রাথমিক হামলার কারণ জানা যায়নি।

তিনি আরও বলেন, ‘এ ঘটনার মাধ্যমে এটা খুবই স্পষ্ট যে, যেকেউ সহজেই কোনোকিছুকে তার হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করছেন।’

জনস্টন জানান, হামলাকারীর কাছে একটি আধা-স্বয়ংক্রিয় রাইফেল ও দুটি পিস্তল ছিল।

সাক্রামেন্টো বি সংবাদপত্র জানিয়েছে, নিহত সন্দেহভাজন গুলিবর্ষণকারীকে ৪৩ বছর বয়সী কেভিন জনসন নিল বলে শনাক্ত করা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা জনসন নিল একটি ছুরিকাঘাতের ঘ্টনায় ফেব্রুয়ারিতে একবার গ্রেপ্তার হয়েছিলেন।

এদিকে, মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এক টুইটার বার্তায় উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ার এই গুলিবর্ষণের ঘটনায় ‘গভীর শোক’ প্রকাশ করেছেন।

এর আগে গত ৬ নভেম্বর টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের উইলসন কাউন্টির একটি বাপটিস্ট গির্জায় গোলাগুলিতে ২৭ জন নিহত হন।

আমেরিকায় প্রতি বছর আগ্নেয়াস্ত্রের গুলিতে ৩৩ হাজার মানুষ প্রাণ হারায়। এদের মধ্যে ১ হাজার ৩০০ জনই শিশু বলে দেশটির সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন এর গবেষকরা জানিয়েছেন। গবেষণায় বলা হয়েছে, আগ্নেয়াস্ত্রের গুলিতে যেসব শিশু নিহত হচ্ছে তাদের মধ্যে মাত্র ছয় শতাংশ দুর্ঘটনাবশত। বাকিগুলো হত্যাকাণ্ড কিংবা আত্মহত্যার মতো ঘটনা। মূলত এক বছর থেকে সতের বছর বয়সী শিশুরা বন্দুক সহিংসতার শিকার হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য