ভারতের দিল্লিতে মারাত্মক ধোঁয়াশায় সামনের পথ দেখতে না পাওয়া এক চালক গাড়ি নিয়ে যমুনা নদীতে পড়ে যান।

রাজধানীর উত্তরাঞ্চলের তিমারপুর এলাকায় বুধবার প্রথম প্রহরের দিকে এ দুর্ঘটনায় চালকসহ দুইজনের মৃত্যু হয় বলে জানায় এনডিটিভি।

এ দুর্ঘটনার পর দিল্লির বর্তমান আবহাওয়া নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আবারও নিন্দার ঝড় উঠেছে।

বিশ্বের অন্যতম দূষিত নগরী দিল্লিকে গত কয়েক দিন ধরে জুঝতে হচ্ছে মারাত্মক ধোঁয়াশার সঙ্গে।

বিবিসি জানিয়েছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দূষণের যে সীমা পর্যন্ত জনস্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ বলে বিবেচনা করে, ভারতের রাজধানীর বাতাস এখন তার চেয়ে ৩০ গুণ বেশি দূষিত।

এই পরিস্থিতিকে ‘পাবলিক হেলথ ইমার্জেন্সি’ ঘোষণা করেছে দেশটির মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন।

এনডিটিভি লিখেছে, দিল্লির বাতাসে এখন ভাসমান বস্তুকণার (পার্টিকুলেট ম্যাটার) পরিমাণ ‘বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত নগরী’ বেইজিংয়ের চেয়েও দশ গুণ বেশি। কাশি, শ্বাসকষ্টের মত নানা উপসর্গ নিয়ে রোগীর ভিড় বাড়ছে হাসপাতালে।

পুলিশ জানায়, যমুনা খাদার এলাকার সিয়াম ঘাটে পার্টি শেষে ওই গাড়িতে করে পাঁচ বন্ধু ফিরছিল, যাদের সবার বয়স কুড়ির কোটায়।

চালকের আসনে থাকা দীপক জাঞ্জির এবং পাশে থাকা কৃষাণ যাদব, দুইজন মারা গেছেন। গাড়ির পেছনের আসনে থাকা বাকি তিন বন্ধু দীপক, আনন্দ ও আকাশ সামান্য আঘাত পেয়েছেন।

পুলিশের ধারণা, ওই পাঁচ তরুণ তখন মদ্যপ অবস্থায় ছিল।

নদীতে পড়ে গাড়ির সামনের অংশ সম্পূর্ণ দুমড়ে মুচড়ে যাওয়ায় দীপক ও কৃষাণ বাইরে বেরিয়ে আসতে ব্যর্থ হয়। বাকি তিনজন গাড়ি থেকে বেরিয়ে নিজেদের প্রাণ বাঁচায়।

পরে তারা পুলিশকে দুর্ঘটনার খবর দেয় এবং বলেন, ঘন ধোঁয়াশার কারণে চালক দীপক সামনের কিছু দেখতে পারছিল না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য