ঠাকুরগাঁওয়ের স্কুল শিক্ষিকা নুরুন নাহার তানজিলাকে নির্যাতনকারী স্বামী পীরগঞ্জ সরকারি কলেজের প্রভাষক আনোয়ার ইসলাম ও তার সহযোগিদের দ্রুত গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

বুধবার দুপুরে শহরের চৌরাস্তায় ঠাকুরগাঁও এর সম্মিলিত নারী সমাজের উদ্যেগে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

এসময় বক্তব্য রাখেন, ঠাকুরগাঁও জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দ্রোপদী দেবি আগরওয়ালা, মহিলা পরিষদ ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সুচরিতা দেব, ঠাকুরগাঁও জননী সংস্থার নির্বাহী পরিচালক নূর বানু বেগম, উপমা পল্লী উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ফারজানা আখতার পাখি, এমকেপির জেন্ডার বিষয়ক কর্মকর্তা মৌসুমি, প্রবীণ সাংবাদিক মনসুর আলী প্রমূখ।

বক্তারা এসময়, স্কুল শিক্ষিকা নুরুন নাহার তানজিলাকে নির্যাতনকারী স্বামী পীরগঞ্জ সরকারি কলেজের প্রভাষক আনোয়ার ইসলাম কিভাবে এখনো বহাল তবিয়তে চাকড়ি করছেন ও কোন শক্তির বলে সে এখনো গ্রেফতার হচ্ছে না এ সম্পর্কে প্রশাসনকে ধিক্কার জানান। অবিলক্ষে বক্তারা নির্যাতনকারী প্রভাষক ও তার পরিবারের সদস্যদের দ্রুত শাস্তি ও গ্রেফতার করার আহ্বান জানান।

এসময় মানববন্ধনে একাত্ব হয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের সাধারণ মানুষ, সাংবাদিক, সুধি সমাজ অংশগ্রহন করেন।

উল্লেখ্য, ঠাকুরগাঁও শহরের গোয়াল পাড়া এলাকার মুক্তিযোদ্ধা শেখ নুরুল ইসলামের মেয়ে স্কুল শিক্ষিকা নুরুন নাহার তানজিলা ও সদর উপজেলার শুখানপুকুরী লাউথুতি গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে পীরগঞ্জ সরকারি কলেজের প্রভাষক আনোয়ার ইসলামের সাথে দীর্ঘ দিনের প্রেমের পরে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে প্রভাষক তার পরিবার সহ স্ত্রী স্কুল শিক্ষিকাকে যৌতুকের জন্য প্রায় অত্যাচার করতো। গত ২৪শে অক্টোবর তানজিনাকে যৌতুকের জন্য আবারো তার স্বামী মারপিট করে মাথা ফাটিয়ে দেয়। পরে স্কুল শিক্ষিকাকে তার পরিবার উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে তানজিলার পিতা বাদি হয়ে ঠাকুরগাঁও থানায় প্রভাষক ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা করেন।

কিন্তু মামলা হওয়ার ১৫ দিন পার হয়ে গেলেও পুলিশ ওই নির্যাতনকারী প্রভাষককে গ্রেফতার করতে পারে নাই।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য