মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে প্রদানের জন্য ১৮ লক্ষ টাকা সমমূল্যের ত্রাণ সামগ্রী পাঠালো রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি। রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র পক্ষ থেকে ২টি ত্রাণবাহী ট্রাক রংপুর থেকে কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরুর প্রাক্কালে এক মত বিনিময় সভা রংপুর চেম্বার ভবনের আরসিসিআই অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। রংপুর চেম্বারের সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রংপুরের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রংপুর চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোজতোবা হোসেন রিপন, সহ-সভাপতি মনজুর আহমেদ আজাদ, এফবিসিসিআই এর পরিচালক ও রংপুর চেম্বারের সাবেক সভাপতি আলহাজ¦ মোঃ মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু, রংপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি সদরুল আলম দুলু, রিলিফ ও সম্মাননা প্রদান বিষয়ক উপ-পরিষদের আহ্বায়ক খেমচাঁদ সোমানী রবি।

বক্তারা বলেন, রোহিঙ্গা শরনার্থী অনুপ্রবেশের ফলে ধ্বংস হচ্ছে পর্যটন শিল্প, দুষিত হচ্ছে পরিবেশ, উজাড় হচ্ছে পাহাড়ের বন-জঙ্গল। হুমকির মুখে পড়েছে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড। তাই বক্তারা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দ্রুত মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে কার্যকারী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি রংপুরের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য এ শ্লোগানকে সামনে রেখে রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ত্রাণ সহায়তা প্রদান করে যে মানবিকতা দেখিয়েছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। এ কর্মকান্ডে যেসব ব্যবসায়ী আর্থিক সহায়তা প্রদান করে মহানুভবতা প্রদর্শন করেছেন তজ্জন্য তিনি রংপুরের ব্যবসায়ীদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। এছাড়া তিনি বলেন, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে প্রদানের জন্য রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি যে ১৮লক্ষ টাকা সমমূল্যের ত্রাণ সামগ্রী পাঠালো তা কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে বিতরণ করার প্রয়োজনীয় কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে মর্মে উপস্থিত ব্যবসায়ীদের আশ^স্ত করেন।

সভাপতির বক্তব্যে রংপুর চেম্বারের সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটু বলেন, রংপুরের জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে রংপুর চেম্বারের পক্ষ থেকে ত্রাণসামগ্রীসমূহ রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে বিতরণের জন্য কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের বরাবরে প্রেরণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, রংপুর চেম্বার ব্যবসায়ীদের স্বার্থ সংরক্ষণের পাশাপাশি রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই নানাবিধ জনকল্যাণমূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে এবং তা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে রংপুর চেম্বার তথা রংপুরের ব্যবসায়ীবৃন্দ অসহায় রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছে তাদের মানব্কি শক্তি জোগাতে। এছাড়া এ কর্মকান্ডে যে সব ব্যবসায়ীগণ আর্থিক সহায়তা দিয়ে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করেছেন তাদের সকলের প্রতি তিনি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে ছিল কম্বল ৪ হাজার, প্লাস্টিকের বালতি ৩ হাজার, চাল ৪ টন, মশারি ৪শ’, বোতলজাত ভোজ্যতেল ১ টন, শুকনা খাবার ৩ টন ও আলু ১০ টন।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রংপুরের সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তা ও পরিচালকবৃন্দ, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীবৃন্দ, বিভিন্ন ব্যবসায়ীক সমিতির নেতৃবৃন্দ, রিলিফ ও সম্মাননা প্রদান বিষয়ক উপ-পরিষদের সদস্যবৃন্দ, রংপুর উইমেন চেম্বারের নেতৃবৃন্দ, রংপুর চেম্বারের ২০১৭-২০১৯ মেয়াদের জন্য গঠিত বিভিন্ন উপ-পরিষদের সদস্যবৃন্দ এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য