দুদকের দায়ের করা দুনীর্তির মামলায় রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আব্দুল জলিল মিয়া ও সাবেক রেজিস্টার শাহাজাহান আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। অপরদিকে এ মামলার অপর ৩ কর্মকর্তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে রংপুরের বিশেষ জজ আদালতের বিচারক নরেশ চন্দ্র সরকার শুনানির পর এ আদেশ প্রদান করেন।

দুদকের আদালত পরিদর্শক বুলু মিয়া জানান ,দুর্নীতির মামলায় মঙ্গলবার অভিযোগ গঠনের দিন ধার্য ছিলো। বিচারক দুই পক্ষের বক্তব্য শোনার পর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আব্দুল জলিল মিয়া ও সাবেক রেজিস্টার শাহাজাহান আলী মন্ডলের বিরুদ্ধে দুদক আইনে অভিযোগ গঠন করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ পরিচালক খন্দকার গোলাম ফিরোজ, সহকারী রেজিস্টার মোরশেদ আলম রনি ও অর্থ দপ্তরের কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলামকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেন। সেই সাথে আগামী বছরের ২৩ জানুয়ারী মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে,মন্ত্রনালয় ও ইউজিসির অনুমোদন না নিয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩শ ৪৯ জন কর্মকর্তাকে নিয়োগ দেন উপাচার্য আব্দুল জলিল মিয়া। ক্ষমতার অপব্যাবহারের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন তহবিল থেকে অবৈধ ভাবে নিয়োগ দেয়া কর্মকর্তা কর্মচারীদের মাসিক বেতন প্রদান করে সরকারের ৯৮ লাখ টাকা ক্ষতি করেছেন।

এই অভিযোগের তদন্ত শেষে দুদক রংপুরের উপ-পরিচালক আব্দুল করিম বাদী হয়ে রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালিন উপাচার্য অধ্যাপক আব্দুল জলিল মিয়া সহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দুদক আইনে ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে চলতি বছরের ১৯ মার্চ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদক রংপুরের উপ পরিচালক মোজাহার আলী সরকার উপাচার্য জলিল মিয়া সহ ৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জসিট দাখিল করেন

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য