মোঃ জাকির হোসেন সৈয়দপুর (নীলফামারী) থেকেঃ ৩ নং ইট (শাল্টি) মাটিযুক্ত পাথর, অখ্যাত সিমেন্টে আর চিকন রড দিয়ে নির্মিত হচ্ছে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা খাদ্য গুদামের ডিজিটাল স্কেল এপ্রোচ রোড । অল্প টাকার কাজ তাই এর চেয়ে ভাল সামগ্রী দেয়া সম্ভবনয় বলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান, ওসি এল, এস,ডি ও তাদারকী প্রকৌশলীর মন্তব্য। এমতায়বস্থায় এলাকাসাবী নি¤œমানের র্নিমান সামগ্রী ব্যবহার করে নির্মিত একাজ বন্ধ রেখে তদন্তের দাবী জানিয়েছে।

সরেজমিনে (১ নভেম্বর) বুধবার দুপুরে সৈয়দপুর খাদ্য গুদামে গেলে দেখা যায় ডিজিটাল স্কেল এপ্রোচ রোডের ঢালাই কাজ চলছে। এসময় ঢালাইয়ে ব্যবহৃত সেলিংয়ের ইট ৩ নম্বর কেন জানতেচাইলে ঠিকাদারির প্রতিষ্ঠানের পাবনার রাধানগরের শুভেচ্ছা ইঞ্জিনিয়ারিং এর পক্ষে কিরণ চন্দ্র জানান, অফসিজন তাই ভাল ইট পাওয়া যাচ্ছে না।

সেজন্য এই ইট (শাল্টি) দিতে হয়েছে। ৮ মিলি ও ১০ মিলি রড ব্যবহারের কথা থাকলেও দেয়া হয়েছে ৬ মিলি রড।

মাটিযুক্ত পাথর কোন রকম ধোলাই বা নেটিং না করেই ব্যবহৃত হতে দেখা যায়। এ নিয়ে প্রশ্ন করলেন খাদ্য অধিদপ্তরের আঞ্চলিক সম্পদ সংরক্ষন প্রকৌশলী মোঃ আব্দুল আলিম জানান, কাজের মান ১৮-২০ হবেই ।

সৈয়দপুর খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা নূরে রাহাত রিমন বলেন, অল্প টাকার কাজ এরা করতেই চায়না তার পরেও যা দিচ্ছে তা নিয়েই সন্তোষ্ট থাকতে হচ্ছে। ঠিকাদারের লোকজনতো বলছে ৫০ বছর টেকসই হবে। কিন্তু আমার মনে হয় ১ বছর ও ঠিকবে না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য