ঘোড়াঘাট, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুর ঘোড়াঘাটে প্রেমিকার বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন। ঘোড়াঘাট উপজেলার শালগ্রামের হযরত আলীর একমাত্র কন্যা মোছাঃ নুরে জান্নাতকে (১৯) বিয়ের প্রলোভন দিয়ে হাকিমপুর উপজেলার ইটাই গ্রামের মৃত, আমীর আলীর এক মাত্র পুত্র সুজন (২২) মোবাইল ফোনে বিভিন্ন স্থানে ডেকে নিয়ে প্রায়ই দৈহিক মেলামেশা করে আসছিল বলে ্অনশনরত প্রেমিকা নুরে জান্নাত জানায়, ।

এদিকে ৩ /৪ মাস পূর্বে হযরত আলী ঘোড়াঘাটের জোতগাড়ী গ্রামের রোস্তম আলীর পুত্র নাহিদুলের সঙ্গে তার মেয়ে নুরে জান্নাতের বিয়ে দিয়েছিল। কিন্ত সুজন প্রেমিকা নুরে জান্নাতকে তার স্বামীর ঘর ভেঙ্গে দিয়ে পূর্বের ন্যায় দৈহিক মেলামেশায় রত থাকে । ২৯ অক্টোবর রবিবার বিকেল ৫ টায় বিয়ে করার কথা বলে সুজন মোবাইল ফোনের নুরে জান্নাতকে বাড়িতে ডেকে নেয় ।

রাত কিছুটা হলে সুজন ও তার মা সাহারা ঘরের দরজা ভেঙ্গে নুরে জান্নাতকে ধাক্কিয়ে বাইরে রেখে গেটে তালা লাগিয়ে সরিয়ে পড়ে। পরে গ্রামের কয়েক জন যুবক সুজনকে আটক রেখে স্থানীয় ইউপি সদস্য হারুন -অর রশিদ হেফাজতে রাখে। ঘটনাস্থলে গ্রামের গণ্যমান্য সহ লোকজন সামাজিক ভাবে উভয়কে উভয়ের সহিত বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহন করে।

রাত গভীর হলে হারুন ্অর রশিদ মেম্বারের হেফাজত থেকে সুজনের খালাতো ভাই পাটনপাড়া গ্রামের কবির হোসেন সুজনকে পালিয়ে দেন। সুজনের লোকেরা বলে সুুজনের বিয়ের বয়স হয়নি। গ্রামবাসি ক্ষীপ্ত হয়ে সুজনের পক্ষের লোকের দুটি মটরসাইকেল (ডায়াং) আটকিয়ে রাখেন । বিষয়টি হারুন মেম্বারকে মোবাইল ফোনে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, আমি সুজনকে পালিয়ে দেয়নি। নুরে জান্নাত প্রমিকা সুজনের বাড়িতে ্অবস্থান করছে। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সূষ্টি করেছে ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য