কাউনিয়ার নিভৃত পল্লি নাজিরদহ গ্রাম থেকে একই স্কুলের দু, জন মেধাবী ছাত্র মোঃ আল-আমিন ও মোঃ মিনারুল ইসলাম ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েও টাকার অভাবে ভর্তি হতে পারছে না। দু’জনের স্বপ্ন পুরোনে বাঁধা হয়ে দাড়িছে দারিদ্রতা। একজনের বাবা ভ্যান চালক আরেক জনের বাবা কৃষি শ্রমিক। দু’জনের বাবাই ভুমিহীন। খাস জমিতে মাথা খোঁজার ঠাঁই বাড়ি টুকুতে কোন রকমে বসবাস করছে। কোন ফসলী জমি জিরাত নেই তাদের।

এক সময়ে নিজস্ব জমিতে বাড়ির ভিটা ছিল। তা তিস্তার ভাঙ্গন বিলীন হয়ে যায়। দারিদ্রতার সাথে প্রতি নিয়ত সংগ্রাম করে এস,এস,সি পরীক্ষায় ভাল ফলাফল করে এ পর্যন্ত এসেছে তারা। এখন অনার্স কোর্সে ভর্তি হতে লাগে প্রায় ২০ হাজার টাকা, এবং প্রতি মাসে খরচ লাগবে প্রায় ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা এ টাকার যোগান দেবেন কে।

এ চিন্তায় বিভোর তারা দু’জন। ইমামগঞ্জ স্কুল এ- কলেজ থেকে এস,এস সি ও কাউনিয়া কলেজ থেকে এইচ, এস সি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে মোঃ আল-আমিন জি,পি এ-৫ পেয়েছে এবং সে ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ে খ ইউনিটে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে। তার মেধা ক্রম খ’ইউনিটে ১৬৩৮ ঘ-ই্উনিটে ৪৬৬। পিতা আকবার আলী একজন ভ্যান চালক। বর্তমানে কঠিন রোগে আক্রান্ত হয়ে শর্য্যাসায়ী ৪ পুত্র ১ কন্যা স্ত্রীসহ ৭জনের সংসার, দুই ভাই বোন পড়া লেথা করে।

অপর ছাত্র মোঃ মিনারুল ইসলাম একই স্কুল থেকে এস,এস সি তে বিজ্ঞান রিভাগে জিপিএ-৪.৫৬ ও হারাগাছ ডিগ্রী কলেজ থেকে মানবিক বিভাগে এইচ এস সি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জি,পিএ ৪,৬৭ পেয়েছে। মিনারুলের বাবা আবদুল লতিফ একজন দরিদ্র শ্রমিক। ৪ ভাই ২বোন পিতা মাতা নিয়ে ৬ জনের সংসার। সব ভাই বোনেই স্কুল কলেজে লেখাপড়া করে। তার পিতার পক্ষে ছেলে কে বিশ্ব বিদ্যালয়ে পড়ানো সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে।

সে ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ে খ ইউনিটে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে মেধাক্রম ২০৬৯। তাদের দু’জনের ভর্তি হওয়ার কোন টাকা পয়সা নাই। তাদের স্বপ্ন ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ে পড়া লেখা করে বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে বড় কর্মকর্তা হয়ে দেশ সেবা করবে। কিন্তু তাদের এ আশা ও স্বপ্ন পূরন হবে কিভাবে তা তাদের জানা নেই। তারা দু’জনে শিক্ষানুরাগীও বিত্তবান মানুষের কাছে ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার জন্য সাহায়্য কামনা করেছে।

বিত্তবান ব্যক্তিরা এগিয়ে না আসলে হয়ত তাদের লেখা পড়া চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে। লেখা পড়া বাদ দিয়ে কাজের সন্ধানে ছুটতে হবে তাদের। দুটি প্রানের স্বপ্ন মিশে যাবে ধুলো মাটির সাথে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য