আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট থেকে: লালমনিরহাটে জাতীয় পার্টির সহযোগী সংগঠন জাতীয় যুব সংহতি’র প্রতিনিধি সম্মেলনে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার দুপুরে লালমনিরহাট শহরের আলোরুপা মোড়স্থ জেলা জাতীয় পার্টি কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। দাওয়াত না দেয়াকে কেন্দ্র করে এ ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় পন্ড হয়েছে জাতীয় যুব সংহতি’র প্রতিনিধি সম্মেলন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এমপি প্রার্থীর দলীয় মনোনায়ন নিয়ে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদের ছোট ভাই ও দলের কো-চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের ও জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ একেএম মাহবুবুল আলম মিঠু’র নেতৃত্বে জেলা জাতীয় পার্টি দুইটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

সোমবার জাতীয় যুব সংহতির কেন্দ্রীয় কমিটি’র সভাপতি আলমগীর শিকদার লোটন ও সম্পাদক ফখরুল আহসান সাহজাদা উত্তরাঞ্চল সফরের অংশ হিসেবে লালমনিরহাটে যুব সংহতির নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময়ের জন্য প্রতিনিধি সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এ অনুষ্ঠানে জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মাহবুবুল আলম মিঠুসহ তার গ্রুপের নেতাকর্মীদের আমন্ত্রন জানানো হয়নি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মিঠু’র গ্রুপের নেতাকর্মীরা অনুষ্ঠানস্থলে মিছিল নিয়ে প্রবেশ করে। এ সময় অপর গ্রুপ মিঠু’র বিপক্ষে স্লোগান দেয়ায় বির্তকের সৃষ্টি হয়। শুরু হয় চেয়ার নিয়ে দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা ব্যানার ও বিলবোর্ড ভাঙচুর করেন।

খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেন। কেন্দ্রীয় নেতারা লালমনিরহাটে প্রবেশের আগেই পার্টি অফিসে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় পণ্ড হয়ে যায় জাতীয় যুব সংহতির জেলা প্রতিনিধি সম্মেলন। লালমনিরহাট জেলা জাতীয় যুব সংহতি’র আহবায়ক গোলাম মোস্তাফা জানান, কেন্দ্রীয় নেতার আগমনে প্রতিনিধি সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এ অনুষ্ঠানে জাপা’র দুই গ্রুপের নেতাকর্মীকে মোবাইলে দাওয়াত দেয়া হয়েছে। কিন্তু সদস্য সচিবকে একাধিকবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি। দাওয়াত না দেয়া দুই গ্রুপের হট্টগোলের কারণে প্রতিনিধি সম্মেলন পণ্ড হয়েছে। লালমনিরহাট জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ একেএম মাহবুবুল আলম মিঠু জানান, হট্টগোলের খবর পেয়ে পার্টি অফিসে গিয়ে উভয় পক্ষকে ধামানো হয়েছে। তবে এ অপ্রীতিকর ঘটনার বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য