কার্তিক মাসের শুরুতে চিরিরবন্দর উপজেলায় ভারি কুয়াশা জানান দিচ্ছে শীত আসছে। ভোরের দিকে ভারি কুয়াশাই জানান দেয় শীত আসছে। গত ক’দিন ধরে সকাল ৯টা পর্যন্ত এই অঞ্চলে কুয়াশায় ঢেকে থাকছে মাঠ-ঘাট।

গত ক’দিন আগে নিম্নচাপের কারণে বাতাসের সাথে হালকা থেকে ভারি বৃষ্টিপাত হয়েছে। বৃষ্টি হওয়ার পর থেকে তাপমাত্রা কমতে শুরু করে। সন্ধ্যার পর থেকেই ঝরতে থাকে কুয়াশা। রাত ১০টার পর থেকেই নদীর তীরবর্তীসহ এলাকা ঢেকে যায় কুয়াশায়। সকালে সড়ক-মহাসড়কে চলাচলকারী যানবাহনগুলোকে হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে।

সৃষ্ট দু’টি নিম্নচাপের কারণে দফায় দফায় বৃষ্টি হয়েছে চিরিরবন্দর উপজেলাসহ উত্তরাঞ্চলের প্রতিটি উপজেলায়। এর প্রভাবে আস্তে আস্তে তাপমাত্রা কমতে শুরু করে। দিন ও রাতের তাপমাত্রায় বেশ পার্থক্য দেখা দেয়। দিনের বেলা রোদ থাকলেও রাত গভীর হওয়ার সাথে সাথে মাঝারি কুয়াশার সাথে হিমেল বাতাসে শীতের পরশ অনুভূত হতে থাকে। ভোররাত থেকে সকাল পর্যন্ত ঘন কুয়াশার চাদরে ঢেকে যায় মাঠ-ঘাট।

শীতের আগমনী বার্তায় মৌসুমী শীতবস্ত্র ব্যবসায়ীরা তাদের পুরাতন কাপড়ের পসরা সাজাতে শুরু করেছে। আর কিছুদিন পরই শুরু হয়ে যাবে তাদের জমজমাট ব্যবসা। এরইমধ্যে লেপ-তোষক কারিগররা তাদের কাজ শুরু করে দিয়েছেন। ভোরবেলা জগিং করতে আসা অধ্যক্ষ আলহাজ¦ ইউসুফ আলী, শিক্ষক সুশান্ত রায়, অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী আলহাজ্জ জহির উদ্দিনসহ কয়েকজন জানান, গত কয়েকদিন ধরেই আগাম বেশ শীত পড়তেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য