আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে চাঞ্চল্যকর সুমন হত্যা মামলার আসামী নি¤œ আদালতে আত্মসর্মপণের ১ মাস পর জামিনে বের হয়ে মামলার বাদীকে হত্যার হুমকি দেয়ায় প্রাণভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে সুমনের পরিবার।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার শালমারা ইউনিয়নের মিরাপাড়া গ্রামে ২০১৬ সালে পারিবারিক জমির দ্বন্দের কারণে প্রতিবেশির হাতে নির্মম ভাবে খুন হয় ৫ম শ্রেণীর স্কুল পড়–য়া ছাত্র সুমন মিয়া (১৪), এঘটনায় সুমনের পিতা ৫ জনসহ অজ্ঞাত আরো ২/৩ জন উল্লেখ করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং ৩৮, তারিখ-২১-০৬-১৭ ইং, জিআর নং-২৬৬, ধারা-৩০২/৩৪ দ.বি.। পুলিশ তৎকালিন সময় স্থানীয় জনগনের সহযোগিতায় একই গ্রামের ভুলু মিয়ার পুত্র ইকবাল হোসেন (১৬) এবং জাহাঙ্গীর আলম ফকিরা পুত্র মংলু (১৫) কে ওই দিনেই গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। এজাহার নামীয় অপর ৩ আসামী পালিয়ে থাকে।

চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার বাদী সুমনের পিতা মাইদুল ইসলাম জানান, দীর্ঘ প্রায় ১৬ মাস পালিয়ে থাকার পর আমার সন্তান সুমন হত্যার অন্যতম আসামী প্রতিবেশি মৃত-ওকান সোনারের পুত্র রেজাউল (৪৮), এখলাছ উদ্দিনের পুত্র মিনাজুল (৩০) ও মৃত-ছোব শেখ ওরফে পালক পিতা-মৃত রজব আলীর পুত্র শহিদুল ইসলাম (৪০) এরা ১৪ সেপ্টেম্বর/১৭ ইং তারিখে গোবিন্দগঞ্জ সিনিয়র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট চৌকি আদালতে আত্মসর্মপূণ করে। বিজ্ঞ আদালত তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

এই চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্তের স্বার্থে আসামীদের রিমার্ন্ড চেয়ে বসেন আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। বিজ্ঞ আদালত ৫ অক্টোবর/১৭ ইং তারিখে এই ৩ আসামীর প্রত্যেককে ৩ দিনের রিমার্ন্ড আদেশ দেন জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। রিমার্ন্ড শেষে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ৮ অক্টোবর/১৭ ইং তারিখে আসামীদের আদালতে বুঝাইয়া দিয়ে আবারও রিমার্ন্ডের আবেদন করেন।

১২ অক্টোবর/১৭ ইং তারিখে গোবিন্দগঞ্জ সিনিয়র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট চৌকি আদালত আসামীদের জামিন দেন। আসামীরা জামিনে মুক্ত হয়ে যেয়ে তাকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য প্রকাশ্যে জনসম্মুখে হত্যাসহ বিভিন্ন ধরণের হুমকি দিতেছে। ১৫ অক্টোবর এঘটনায় মামলার বাদী মাইদুল ইসলাম বিষয়টি মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে অবহিত করে থানায় একটি জিডি করেছেন। যার জিডি নংÑ৭৭০, তারিখ-১৫ অক্টোবর/১৭ইং। বর্তমানে আসামীদের হুমকির কারণে মামলার বাদী পরিবার নিয়ে প্রাণভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য