নিজের শরীরে মরণব্যাধি এইডসের জীবাণু আছে জেনেও কোনো সুরক্ষা ছাড়াই বহু নারীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন ইতালীয় নাগরিক ভ্যালেন্টিনো তাললুতো।

এর মাধ্যমে ৩০ জনেরও বেশি নারীর শরীরে এইচআইভি ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ায় শুক্রবার তাকে ২৪ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে রোমের এক আদালত।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৩৩ বছর বয়সী হিসাবরক্ষক তাললুতো ২০১৫ সালের নভেম্বরে গ্রেপ্তার হওয়ার আগ পর্যন্ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বহু নারীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন।

পুলিশের বিশ্বাস, ওই সময় তিনি অন্তত ৫৩ জন নারীর সঙ্গে শারীরিকভাবে মিলিত হয়েছিলেন যাদের ৩২ জন এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

এরপর ওই নারীদের মধ্যে তিনজনের পুরুষ সঙ্গীর শরীরেও ভাইরাসটি সংক্রমিত হয়, পাশাপাশি চতুর্থ আরেক নারীর আট মাস বয়সী একটি শিশুও ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়।

আদালতের শুনানিতে বলা হয়, তাললুতো প্রায়ই কনডম ব্যবহার না করা নিয়ে একটা অজুহাত দাঁড় করাতেন, সঙ্গীকে জানাতেন কনডম ব্যবহার করলে তার অ্যালার্জি দেখা দেয় অথবা তার এইচআইভি পরীক্ষা করা আছে।

যা হয়েছে তার জন্য তাললুতো দুঃখপ্রকাশ করলেও নিজের কাজের ফলাফল কী হতে পারে তা অনুধাবন করতে পারেননি বলে দাবি করেছেন তিনি।

নিজের কর্মের মাধ্যমে তাললুতো এইচআইভির প্রাদুর্ভাব ছড়িয়েছেন দাবি করে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিতে আদালতের কাছে আর্জি জানিয়েছিলেন কৌঁসুলিরা। কিন্তু আদালত এই দাবি প্রত্যাখ্যান করে ‘মর্মান্তিক ও নিরাময় অযোগ্য শারীরিক ক্ষতি’ করার কারণে তাললুতোকে দোষী সাব্যস্ত করেন।

তার সঙ্গে মিলিত হওয়া অনেক নারীই তাললুতোর গ্রেপ্তার ও তার শারীরিক পরীক্ষার খবর পাওয়ার পর তারা নিজেরাও এইচআইভি ভাইরাস বহন করছেন বলে জানতে পারেন।

১৯৮০-র দশকে এইচআইভি/এইডস রোগটি পুরো পৃথিবীজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে এ রোগে ভুগে এ পর্যন্ত সাড়ে তিন কোটি মানুষ মারা গেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য