আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট থেকে: প্রেমের জালে ফেলে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রীকে দ্বিতীয় বিয়ে করায় শিক্ষক আশরাফুল আলম খান বকুলকে বিদ্যালয় থকে অপসারণের দাবিতে ক্লাস বর্জন করে মানববন্ধন করেছে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনাটি ঘটেছে লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলায়। বুধবার দুপুরে ক্লাস বর্জন করে বিদ্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করে শাহ গরীবুল্ল্যাহ বালিকা বিদ্যালের শিক্ষার্থীরা।

এ সময় কয়েকজন ছাত্রী জানান, ‘বকুল স্যার যা করেছেন, তা সভ্য সমাজের যেকোন মানুষরই কাছে বেমানান। এতে শুধু আমাদের বিদ্যালয়ের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হয়নি, আমাদের অভিভাকরাও দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। তাই তাকে শুধু সাময়িক বরখাস্ত নয়, স্থায়ী ভাবে চাকুরি থেকে অব্যাহতি দিতে হবে এ জন্যই আজ আমরা ক্লাস বর্জন করে মানববন্ধন করেছে। বকুল স্যারকে যদি স্থায়ী ভাবে বরখাস্ত করা না হয় তাহলে আমরা আরো কঠোর কর্মসুচি ঘোষনা করবো।

জানাগেছে, হাতীবান্ধা শহরের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শাহ গরীবুল্ল্যাহ বালিকা বিদ্যালের শিক্ষক আশরাফুল আলম খান বকুল। প্রেমের জালে ফাসিয়ে তার এক প্রক্তন ছাত্রীকে কয়েকদিন আগে দ্বিতীয় বিয়ে করে ঘরে তোলে। এ ঘটনায় ফুঁসে উঠে শিক্ষার্থীরা। তারা ওই শিক্ষকের ক্লাস করবেন না বলে ঘোষণা দিয়ে প্রধান শিক্ষকের কাছে লিখিত অভিযোগও করেছেন।

এরই প্রেক্ষিতে স্কুল পরিচালনা কমিটির জরুরী বৈঠকে আশরাফুল আলম খান বকুলকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়। এ বিষয়ে হাতীবান্ধা শাহ গরীবুল্লাহ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক দুলাল অধিকারী বলেন,‘ছাত্রীরা এরআগে একদিন ক্লাস বর্জন করেছিল তাই বকুলকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে আজ হঠাত কওে আজ আবার তারা ক্লাস বর্জন করে মানব বন্ধন করেছে।

তবে বকুলকে স্থায়ীভাবে বহিস্কারের জন্য আগামী ০৭ কর্মদিবসের মধ্যে তার ব্যাখ্যা চেয়ে নোটিশ পাঠানো হয়েছে।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য