গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার খামার পবনতাইর এলাকার মানুষের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা একটি বাঁশের সাকো। দির্ঘ্যদিনেও ওই স্থানে ব্রিজ নির্মাণ না হওয়ায় ৫ গ্রামের মানুষের ভোগান্তি বেড়ে গেছে। বিশেষ করে খামার পবনতাইর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা সাকোটির উপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে পাড়াপাড় করছে।

উপজেলার ঘুড়িদহ ইউনিয়নের ডাকবাংলা ওয়াপদা বাঁধের পুর্ব পার্শ্বে খামার পবনতাইর বিলের উপর দির্ঘ্য প্রায় ৩ বছর ধরে চিনিরপটল, হলদিয়া, বেড়া ও পবনতাইর সহ ৫ গ্রামের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা বাঁশের সাকোটি। বন্যা কিংবা অতি বর্ষণ হলেই পানি আটকে ৫ মাসেরও বেশি। ডাকবাংলা এলাকার বাসিন্দা আকতারুল ইসলাম জানান, অনেকবার দাবি জানিয়েও ব্রিজ নির্মাণে পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

গেল বন্যা থেকে এ পর্যন্ত পানি আটকে থাকায় ঝুঁকি নিয়ে পাড়াপাড় হতে হচ্ছে গ্রামবাসীদের। সবচেয়ে বেশি সমস্যায় রয়েছে খামার পবনতাইড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষাথীরা। ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক রুমানা বেগম বলেন, বাচ্চাদের যাতায়াত নিয়ে চিন্তায় থাকতে হয়। গ্রামবাসী জানান, সরকারী ভাবে একবছর আগে ব্রিজ নির্মাণের বরাদ্দ হলেও তা অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হয়। বাঁশের সাকো নির্মাণেও কোন পদক্ষেপ নেয়নি কেউ।

স্থানীয় সাংবাদিক জয়নাল আবেদিনের চেষ্টায় কোনমতে সাকোটি নির্মাণ করে যাতায়াত করছে এলাকাবাসী। ঘুড়িদহ ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জামিল মিয়া জানান, ওই স্থানে ব্রিজ নির্মাণের চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য