ভারতে বিশ্বখ্যাত ঐতিহাসিক তাজমহল নিয়ে বিজেপি বিধায়ক সঙ্গীত সোমের বিতর্কিত মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় সমাজবাদী পার্টির নেতা আজম খান বলেছেন, গোলামীর নিদর্শন নিশ্চিহ্ন না করা রাজনৈতিক নপুংসুকতা।

তাজমহল সম্পর্কে বিজেপি বিধায়ক সঙ্গীত সোমের মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, ‘বিজেপি যা করছে, তা গণতন্ত্র নয়, স্বৈরতন্ত্র। সেই দিন আর বেশি দূরে নেই যখন ইতিহাস নতুন করে রচনা করতে গিয়ে বিজেপি দেশের নামটাই না পাল্টে দেয়! বিজেপি রাজনৈতিক স্বার্থ’ চরিতার্থ করতেই ‘বিভাজনমূলক মন্তব্য’ করে চলেছে।

মমতা তাজমহলকে ভারতের গর্ব বলে উল্লেখ করে বলেন, ‘আমাদের রাজ্যে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল আছে। এমনকি সংসদ ভবনও ব্রিটিশ আমলে তৈরি হয়েছিল। নর্থব্লক ও সাউথ ব্লকও ইংরেজরা তৈরি করেছিল।’

মমতা বলেন, বিজেপি নেতাদের সম্পর্কে যত কম বলা যায়, ততই ভালো। ওদের মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া দিতে লজ্জা হয়! ওরা কোনো উন্নয়নের কাজ করছে না। শুধু রাজনৈতিক এজেন্ডার জন্য বিভাজনমূলক মন্তব্য করে চলেছে। আমরা এভাবে মানুষের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করায় বিশ্বাস করি না।’

এদিকে বিজেপি নেতা সঙ্গীত সোমের নাম উল্লেখ না করে আজম খান বলেন, ‘আমি কারো কথার জবাব দিচ্ছি না কারণ, গোশত কারখানা চালানো লোকদের রায় দেয়ার অধিকার নেই। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন নরেন্দ্র মোদি আর যোগি আদিত্যনাথ। কিন্তু আমি এটা বলতে চাই যে, ওইসব ভবন ভেঙে ফেলা উচিত যাতে বিগত দিনের শাসকদের দুর্গন্ধ আছে!’

আজম খান বলেন, ‘আমি তো আগেও বলেছি কেবল তাজমহল কেন, পার্লামেন্ট, প্রেসিডেন্ট ভবন, কুতুব মিনার, লালকেল্লা এসব ভেঙে ফেলা উচিত। আমি তো বাদশাহের (মোদি) কাছে আবেদন করেছি, ছোট বাদশাহকে (যোগি) বলেছি, আপনি আগে চলুন, আমরা সঙ্গে আছি। প্রথম কোদাল আপনি চালাবেন, দ্বিতীয়টি আমার হবে। কিছু বলার পরে তা থেকে পিছিয়ে আসা রাজনৈতিক নপুংসকতা।’
আজম খান

আজম খান বলেন, ‘যারা এসব স্থাপত্যকে দাসত্বের নিদর্শন বলছেন, তাদের গোটা দেশে রাজত্ব ও কর্তৃত্ব রয়েছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও যদি সাহস না থাকে তাহলে একে রাজনৈতিক নপুংসকতাই বলতে হবে।’

আজম খান বলেন, ‘আমি এটা বলতে চাই না যে মোগলরা কোন পরিস্থিতিতে ভারতে এসেছিল, কারা তাদের এখানে নিয়ে এসেছিল। যদি এ নিয়ে বিতর্ক হয় তাহলে তিক্ততা চলে আসবে। লোকেরা আমাদেরকে খারাপ বলে মনে করবে। এজন্য তা বলতে চাই না।’

উত্তর প্রদেশের বিজেপি বিধায়ক সঙ্গীত সোম সম্প্রতি এক জনসভায় বলেছেন, তাজমহল ‘বিশ্বাসঘাতক’রা তৈরি করেছে। তাজমহল যিনি নির্মাণ করেছেন তিনি নিজের বাবাকেই বন্দি করেছিলেন। হিন্দুদের গণহত্যা করেছেন। হিন্দুদের ওপর চরম অত্যাচার করেছেন। এসব ঐতিহ্য অথবা ইতিহাসের দরকার নেই। আমরা নতুন করে ইতিহাস লিখব।’

তিনি মুঘল বাদশাহ বাবর, আওরঙ্গজেব, আকবরকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলে অভিহিত করে ইতিহাস থেকে তাদের নাম মুছে ফেলা হবে বলে মন্তব্য করেন। এরপর থেকে বিভিন্নমহলে সঙ্গীত সোমের মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করা হচ্ছে। বিজেপি অবশ্য সঙ্গীত সোমের মন্তব্যকে ব্যক্তিগত মত বলে অভিহিত করে সাফাই দেয়ার চেষ্টা করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য