সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিশুতে জোড়া বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে অন্তত ২৬৩ জনে দাঁড়িয়েছে। সোমবার চিকিৎসদের জানানো এ তথ্য নিশ্চিত করেছে ২০০৭ সালে আল শাবাব জঙ্গিরা বিদ্রোহ শুরু করার পর থেকে এটাই দেশটিতে চালানো সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলার ঘটনা।

শনিবার শহরটির কেন্দ্রস্থলের দুটি ব্যস্ত এলাকায় দুই ঘন্টার ব্যবধানে দুটি বড় ধরনের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। হামলার পর রোববার স্থানীয় কর্মকর্তারা নির্দিষ্ট সংখ্যা না জানিয়ে হামলায় দুই শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন।

শহরের মদিনা হাসপাতালের চিকিৎসক আদেন নুর জানান, তারা ২৫৮ জনের মৃত্যু রেকর্ড করেছেন। নিকটবর্তী ওসমান ফিকি হাসপাতালের নার্স আহমেদ আলি বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে তাদের এখানে পাঁচটি লাশ পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

মদিনা হাসপাতালে রয়টার্সকে নুর বলেন, “১৬০টি লাশ শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি, তাই সরকারি উদ্যোগে গতকাল তাদের লাশ দাফন করা হয়েছে। অন্যান্যদের লাশ তাদের আত্মীয়স্বজনরা নিয়ে গেছেন। শতাধিক আহত এখনও হাসপাতালে চিকিৎসধীন আছেন।”

উন্নত চিকিৎসার জন্য গুরুতর আহতদের মধ্যে আটজনকে সোমবার অ্যাম্বুলেন্সে করে বিমানবন্দরে নিয়ে গিয়ে তুরস্কে পাঠানো হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

হামলার দায় কেউ স্বীকার করেনি। তবে আত্মপ্রকাশের পর থেকেই সোমালিয়া সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করা জঙ্গিগোষ্ঠী আল শাবাব প্রায়ই এ ধরনের প্রাণঘাতী হামলা চালিয়ে থাকায় সন্দেহের তীর তাদের দিকেই।

হামলার ঘটনায় তিন দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেছেন সোমালিয়ার প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আব্দুল্লাহি মোহাম্মদ।

প্রিয়জনের খোঁজে অনেক মানুষ হাসপাতালগুলোতে ভিড় করেন বলে খবর দিয়েছে স্থানীয় গণমাধ্যম। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন পুলিশ কর্মকর্তা ইব্রাহিম মোহাম্মদ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য