দিনাজপুরের বীরগঞ্জে ভুয়া ক্লিনিক মালিককে গ্রেফতার করেছে প্রশাসন। পরে ভ্রাম্যমান আদালতে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা। এদিকে আবাসিক এলাকায় ক্লিনিক বন্ধের দাবীতে এলাকাবাসী দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে আসছে। বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্টেট মোহাম্মদ আলম হোসেন ১০ অব্টোবর পৌর শহরের ২নং ওয়ার্ড উত্তরা আবাসিক এলাকায় সন্ধ্যায় পেসেন্ট কেয়ার হাসপাতালে নামে একটি অবৈধ ক্লিনিকে অভিযান চালায়।

এ সময় ক্লিনিকটির সঠিক কাগজপত্র, ডাক্তার ও নার্স না থাকায় সাময়িক বন্দ করে এর মালিক মোঃ সফিকুল ইসলাম সফিক (৩৫) কে আটক করে। পরে ক্লিনিক মালিক ভুল স্বীকার করে সঠিক কাগজ পত্র না হওয়া পযন্ত ক্লিনিকটি বন্ধ রাখার কথা জানিয়ে আদালতের কাছে ক্ষমা চেয়ে মুচলেকা দিলে ভ্রাম্যমান আদালত ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে।

উল্লেখ্য, ক্লিনিক মালিক সাতোর ইউনিয়নের ২৮মাইল এলাকার আলহাজ্ব সুলতান আহাম্মেদের পুত্র। তার বিরুদ্ধে ১২ সেপ্টেম্বর আবাসিক এলাকার ক্লিনিক না করার দাবীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে এলাকাবাসী অভিযোগ দাখিল করে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরজমিনে গিয়ে পরিদর্শন করে সঠিক কাগজ পত্র না হওয়া পযন্ত ক্লিনিকটি চালু না করার নির্দেশ দেয়। কিন্তু গত ৭ অক্টোবর সন্ধ্যায় বীরগঞ্জ মহিলা কলেজ মাঠে এক অনুষ্ঠানে ফুলের নৌকা তুলে দিয়ে জামায়াত হতে আওয়ামী লীগে যোগদান করে মোঃ সফিকুল ইসলাম সফিক । এরপর প্রভাব খাটিয়ে সেই ক্লিনিকে নিয়মিত সিজার কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য